আলোচিতরাজনীতি

সাংগঠনিক দুর্বলতায় ঢাকা-১৭ আসন থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন এরশাদ!

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : ঢাকা-১৭ (গুলশান, বনানী ক্যান্টনমেন্ট ও ভাষানটেক) আসনে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে পারেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। যেকোনো এ বিষয়ে সময়ে ঘোষণা আসতে পারে বলে এরশাদের ঘনিষ্ঠ একাধিক সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

আর এই সরে দাঁড়ানোর অন্যতম কারণ হচ্ছে- এরশাদের শারিরীক অবস্থা ও জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক দুর্বলতা।

এরশাদের শারিরীক অসুস্থতা একাধিক আসনে মুভমেন্ট করার মতো অবস্থায় নেই। বর্তমানে সিঙ্গাপুরের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এরশাদ ঠিক কবে দেশে ফিরতে পারবেন সেটি এখনও নিশ্চিত নয়। সে কারণে ঢাকা-১৭ আসন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত অনেকটাই চূড়ান্ত করে ফেলেছেন বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে এই আসনে জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা অনেক নাজুক। গত কয়েকদিনের প্রচারণায় সে বিষয়টি সামনে চলে এসেছে। বুধবার (১২ ডিসেম্বর) পুর্বঘোষণা অনুযায়ী কড়াইল বস্তিতে প্রচারণায় গেলে অনেক নেতার দেখা মেলেনি। মাত্র অল্পসংখ্যক নেতাকর্মী হাজির হন। অনেক ত্যাগী নেতাকে পাওয়া যাচ্ছে না নির্বাচনী প্রচারণায়।

কড়াইল টিএন্ডটি কলোনিতে অবস্থিত ১৯ নম্বর ওয়ার্ড জাতীয় পার্টির কার্যালয় তখন তালাবন্ধ ছিলো। পার্টি অফিসের চাবি নিয়ে কিছু নেতা লাপাত্তা হয়ে যান। অর্থাৎ যাকে নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সেই নেতাকে সহ্য করতে পারছে না অনেকে।

এই যখন অবস্থা। তখন আওয়ামী লীগ আগে থেকেই এই আসনটিতে এরশাদকে নির্বাচন না করার জন্য বলে আসছে। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এরশাদকে একটি আসনে নির্বাচন করার জন্য বলা হয়েছে। সে মোতাবেক রংপুর-৩ (সদর) আসনে প্রার্থী দেয়নি আওয়ামী লীগ। কিন্তু ঢাকা-১৭ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চিত্রনায়ক ফারুক নির্বাচনের মাঠে রয়ে গেছেন।

প্রেসটিজিয়াস এই আসনে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ২০০৮ সালে প্রথম নির্বাচন করেন। তখন মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে এরশাদ পেয়েছিলেন ১ লাখ ২৩ হাজার ভোট। আর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বিএনপির প্রয়াত হান্নান শাহ পেয়েছিলেন মাত্র ৫৬ হাজার ভোট। এবার মহাজোটও নেই আবার আগের মতো শরীরে জোরও নেই। সে কারণে হারের শঙ্কা ভর করেছে জাতীয় পার্টির নেতাদের মধ্যে।

জাতীয় পার্টির নেতারা গর্ব করে বলে থাকেন এরশাদ এই দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা। তিনি কখনই কোনো আসনে পরাজিত হননি। এমনকি জেলে থেকে পাঁচ পাঁচটি আসনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছিলেন। যে কারণে বিজয়ের রেকর্ড ধরে রাখতে ঢাকা-১৭ আসন থেকে সরে দাঁড়ানোর কথা মাথায় ভর করেছে। তবে যদি সরকার তাদের প্রার্থী সরিয়ে এরশাদকে মহাজোটের প্রার্থী ঘোষণার প্রতিশ্রুতি দেন তবে সরে নাও দাঁড়াতে পারেন।

এদিকে এরশাদের স্ত্রী পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদও একাধিক আসনে মনোনয়ন দাখিল করেছিলেন। মনোনয়ন প্রত্যাহারের তারিখ পার হওয়ার পর হঠাৎ করে ময়মনসিংহ-৭ আসন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। রওশন এরশাদের পদাঙ্ক অনুস্রণ করতে যাচ্ছেন বলে এরশাদের ঘনিষ্ঠ সূত্র নিশ্চিত করেছে।

 

সূত্র: বার্তা২৪

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button