গাজীপুর

কালীগঞ্জে অন্তরঙ্গ মুহূর্তের দৃশ্য ধারণ করে ব্যবসায়ীকে ব্ল্যাকমেল ও জিম্মি: গ্রেপ্তার ৩

নিজস্ব সংবাদদাতা : কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক এক নেতার স্ত্রীর সঙ্গে নরসিংদীর এক ব্যবসায়ীর অন্তরঙ্গ মুহূর্তের দৃশ্য ধারণ করে তাকে ব্ল্যাকমেল ও জিম্মি করে মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার, মোবাইল ও নগদ অর্থ হাতিয়ে নেয়ার ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে।

শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) ছাত্রলীগ নেতা, তার স্ত্রী এবং ভাইকে গ্রেপ্তার করে আদালতে হাজির করলে বিচারক তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

গ্রেপ্তাররা হলো বক্তারপুর ইউনিয়নের কলুন গ্রামের ফাইজুর রহমান ফুলু মিয়ার ছেলে অহিদুর রহমান রবিন (৩২)ও নাহিদুর রহমান খোকন (৩৭) এবং রবিনের স্ত্রী নূসরাত জাহান ঊষা (২৩)। এদের মধ্যে অহিদুর রহমান রবিন কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক।

ভুক্তভোগী ও মামলার বাদী হলেন নরসিংদীর সাহেপ্রতাব এলাকার মনসুর আলীর ছেলে ব্যবসায়ী আবু নাইম মোঃ শাহাজাদা (৪৩)।

পুলিশ ও এজাহার সূত্রে জানা গেছে, আনুমানিক ৮ মাস আগে আসামি নূসরাতের সাথে নরসিংদীর একটি খাবার হোটেলে বাদীর পরিচয় হয়। সে সময় তাদের দু’জনের মধ্যে মোবাইল নম্বর আদান-প্রদান হয়। এর কিছুদিন পর তাদের দু’জনের মধ্যে মোবাইলে যোগাযোগ হয়। এতে দুজনের মধ্যে ভালো সখ্যতা গড়ে উঠে। পরে নূসরাত তার স্বামী রবিনের পরিবারের সঙ্গে বাদীর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়। এরমধ্যেই অসৎ উদ্দেশ্যে নূসরাত কৌশলে তাদের দু’জনের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের কিছু ছবি এবং ভিডিও গোপনে ধারণ করে রাখে। পরিচয়ের সূত্রে ধরে নূসরাতের বাসায় নিয়মিত আসা-যাওয়া করতে থাকে বাদী শাহাজাদা। নূসরাতও বাদীর বাসায় যাওয়া আসা করতো। এছাড়াও নূসরাতের শ্বাশুড়ী শাহাজাদাকে ধর্মভাই বানায়। সেই সূত্রে গত ২৪ জানুয়ারী শাহাজাদার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে নূসরাতের স্বামী রবিনকে একটি চাকরি দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন তারা। পরে রবিনকে বাদীর মুরগীর ফার্মে ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ দেন। রবিন মুরগির ফার্মে চাকরি করা অবস্থায় গত ২৪ জানুয়ারি পরিকল্পিতভাবে বাদীর ব্যবহৃত মোটরসাইকেল (ইয়ামাহা ফেজার) এবং ফার্ম থেকে নগদ ৫ হাজার টাকা নিয়ে বিকেলে জরুরী কাজের কথা বলে বাড়ি চলে যায়। এরপর দুইদিন পেরিয়ে গেলেও রবিন কাজে যোগ না দিয়ে ২৬ জানুয়ারি সন্ধ্যায় ফোন করে বাদীকে জানায় তার পারিবারিক সমস্যা হয়েছে। পরে শাহাজাদা তার ব্যক্তিগত প্রাইভেটকার (এলিয়ন) নিয়ে রবিনের বাড়ীতে যান। সে দিন রাত আনুমানিক ৯ টার দিকে রবিন ও তার ভাই খোকন তাদের বসত ঘরে শাহাজাদাকে দড়ি দিয়ে বেঁধে ফেলে। সে সময় তারা বাদীর সঙ্গে থাকা ২টি মোবাইল ফোন জোরপূর্বক কেড়ে নেয়। এছাড়াও তারা বাদীকে ব্ল্যাকমেল ও জিম্মি করে উত্তেজিত হয়ে মারধর করে।

বাদী এজাহারে উল্লেখ করেন, একপর্যায়ে আসামিরা ১৮ লাখ টাকা দাবি করে। টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে বলে তর গাড়িটি নেয়ার জন্য অনেকদিন যাবৎ চেষ্টা করছি। আজকে সুযোগমত পেয়েছি। টাকা দিতে না পারলে গাড়ি দিয়ে যা। বাদী গাড়ি দিতে না চাইলে তারা মারধর করে এবং মৃত্যুর ভয় দেখিয়ে পরিকল্পিত ভাবে তাদের কাছে থাকা সাদা স্ট্যাম্পে অজ্ঞাত আরো কয়েকজনের সহায়তায় জোরপূর্বক বাদীর স্বাক্ষর নেয় এবং মানিব্যাগে থাকা জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, পাসপোর্ট সাইজের ছবিতেও স্বাক্ষর নেয়। এছাড়াও তারা মারধর করে জোরপূর্বক স্বীকারোক্তি মূলক অডিও ও ভিডিও রেকর্ড করে রাখে। একপর্যায়ে রাত গভীর হলে তারা বাদীকে খুন করে লাশ গুম করার পরিকল্পনা করতে থাকে‌। এরমধ্যেই রাত আনুমানিক ৪টার দিকে বাদী পালিয়ে যায়। সে সময় আসামিরাও তার পিছু নেয়। কিন্তু বক্তারপুর মার্কেটে পাহাড়ায় থাকা লোকজন দেখে তারা চলে যায়।

পরে নরসিংদী ফিরে শাহাজাদা চিকিৎসা নিয়ে গত বৃহস্পতিবার দিবাগত মধ্যরাতে ৩৪২,  ৩২৩, ৩৭৯, ৩৮৬ ও ৫০৬ ধারায় অভিযুক্ত নূসরাত, রবিন ও খোকনের নাম উল্লেখ করে এবং গতর অজ্ঞাত ৩ জনের বিরুদ্ধে কালীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন {মামলা নাম্বার ৩(২)২৪}।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) অহিদুজ্জামান বলেন, মামলা দায়েরের পর অভিযান পরিচালনা করে আসামিদের বাড়ি থেকে বৃহস্পতিবার দিবাগত মধ্যরাতে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সে সময় প্রাইভেটকারটি উদ্ধার করা হয়েছে। আসামি রবিন ও তার ভাই খোকনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে এবং অপর আসামি নূসরাতকে শুক্রবার আদালতে হাজির করা হয়েছে। আদালত আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি রিমান্ড শুনানির জন্য দিন ধার্য করে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। মামলার তদন্ত কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button