আইন-আদালতআলোচিত

কারাগারে অগ্নিদগ্ধ আইনজীবীর মৃত্যু নিয়ে প্রশ্ন: বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : পঞ্চগড়ের জেলা কারাগারে পলাশ কুমার রায় নামের এক ব্যক্তির গায়ে আগুন লাগার ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

গত ২৬শে এপ্রিল পঞ্চগড়ের ওই কারাগারে অগ্নিদগ্ধ হন পলাশ কুমার রায়, যিনি পেশায় একজন আইনজীবী ছিলেন।

অগ্নিদগ্ধ হওয়ার পর ৩০শে এপ্রিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

কারাগারের মতো একটি সুরক্ষিত স্থানে একজন বন্দীর গায়ে আগুন লাগার ঘটনা এই মধ্যে বেশ আলোড়ন তুলেছে।

এই ঘটনায় সায়েদুল হক সুমন নামের একজন আইনজীবী আদালতে বাদী হয়ে একটি রিট দায়ের করেন হাইকোর্টে।

কারাগারের ভেতরে একজন মানুষের শরীরে আগুন লাগার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কীভাবে পৌঁছালো এবং কারাগারে অবস্থানরত ব্যক্তির নিরাপত্তা দিতে কারা কর্তৃপক্ষের ব্যর্থতা কেন অবৈধ বলে ঘোষণা করা হবে না – রিটে মূলত সেই প্রশ্নই তুলেছেন সায়েদুল হক সুমন।

ওই রিটের প্রেক্ষিতে ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

কেন গ্রেপ্তার হয়েছিলেন পলাশ রায়?
পলাশ রায়ের ভাই প্রবীর কুমার রায় জানান, প্রধানমন্ত্রীকে কটুক্তি করার অভিযোগে ২৬শে মার্চ পলাশ রায়কে আটক করে জেল হাজতে পাঠায় পঞ্চগড় পুলিশ।

তবে প্রধানমন্ত্রীকে কটুক্তি করার মামলাটি সাজানো ছিল বলে দাবি করেন প্রবীর কুমার রায়।

তিনি বলেন, “আমার ভাই একটি রাসায়নিক তৈরিকারী প্রতিষ্ঠানের আইনি কর্মকর্তা ছিলেন। ২০১৬ সালে ঐ প্রতিষ্ঠান তার নামে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে।”

তিনি আরও জানান, “এ বছরের ২৫শে মার্চ ওই ঘটনার প্রতিবাদে সে (পলাশ রায়) একটি মানববন্ধন করে এবং প্রধানমন্ত্রীর বরাবর একটি স্মারকলিপি জমা দেয়ে পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসকের অফিসে।”

এর পরদিনই প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কটুক্তি করার অভিযোগে তাকে আটক করে জেল হাজতে নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানান প্রবীর রায়।

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button