আন্তর্জাতিক

ইউক্রেন যুদ্ধের বৃহত্তর ঝুঁকি নিয়ে দুশ্চিন্তা

গাজীপুর কণ্ঠ, আন্তর্জাতিক ডেস্ক : পোল্যান্ডে ক্ষেপণাস্ত্র বিস্ফোরণের জন্য রাশিয়াকে আপাতত সরাসরি দায়ী করা না হলেও ইউক্রেন সংকটের ঝুঁকি নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে দুশ্চিন্তা বাড়ছে৷ ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে সংঘর্ষ চলছে৷

পোল্যান্ডে ক্ষেপণাস্ত্র বিস্ফোরণের জন্য যে রাশিয়া সরাসরি দায়ী নয়, সেই বাস্তব সামনে আসতে আপাতত উত্তেজনা কিছুটা কমেছে৷ গোটা দেশজুড়ে রাশিয়ার হামলা প্রতিহত করতে ইউক্রেন যে এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম গড়ে তুলেছে, সেই কাঠামোর এক ক্ষেপণাস্ত্রই পোল্যান্ডে অঘটন ঘটিয়েছে বলে আপাতত জানা গেছে৷ পুরানো সেই এস-৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র রাশিয়া ও ইউক্রেন-দুই পক্ষই ব্যবহার করে বলে সহজে সংশয় কাটছে না৷ তবে ঘটনাস্থলে তদন্তের কাজে ইউক্রেনও অংশ নিতে চায়৷ কারণ ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদোমির জেলেনস্কি এখনো ক্ষেপণাস্ত্রের উৎস সম্পর্কে নিশ্চিন্ত নন৷ ন্যাটোর রাষ্ট্রদূতরা ব্রাসেলসে এক জরুরি বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছেন৷ তারা গত ফেব্রুয়ারি মাসে যুদ্ধ শুরু করার জন্য সার্বিকভাবে রাশিয়াকেই দায়ী করেছেন৷

জাতিসংঘও পোল্যান্ডের ঘটনার জের ধরে বাড়তি উত্তেজনা সম্পর্কে দুশ্চিন্তা প্রকাশ করেছে৷ নিরাপত্তা পরিষদের এক বৈঠকে জাতিসংঘের রাজনৈতিক ও শান্তিরক্ষা বিষয়ক প্রধান রোজমেরি ডিকার্লো বলেন, মঙ্গলবারের ঘটনা বাড়তি উত্তেজনা এড়ানোর প্রয়োজনীয়তা আরও স্পষ্ট করে দিচ্ছে৷ তাঁর মতে, যুদ্ধ অবসানের কোনো চিহ্ন এখনো দেখা যাচ্ছে না৷ ফলে সংঘাত ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা ও তার মারাত্মক পরিণতির ঝুঁকি অত্যন্ত বাস্তব৷ জাতিসংঘে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ইউক্রেনের উপর রাশিয়ার ‘অপ্রয়োজনীয়’ হামলা ও সম্প্রতি সে দেশের অবকাঠামোর উপর হামলার তীব্র নিন্দা করেন৷

এদিকে জরুরি অবকাঠামোর উপর রাশিয়ার সর্বশেষ হামলার কারণে রাজধানী কিয়েভ-সহ দেশের বিভিন্ন অংশে বিদ্যুৎ সরবরাহ বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে৷ ক্ষয়ক্ষতি সামলে প্রশাসন আবার পরিষেবা যতটা সম্ভব চালু করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে৷ গত প্রায় নয় মাসের যুদ্ধে রাশিয়া এর আগে একসঙ্গে এত ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে নি বলে ইউক্রেন জানিয়েছে৷

ইউক্রেনের পূর্বাংশে দখলদারী রুশ বাহিনীর সঙ্গে ইউক্রেনের সৈন্যদের সংঘাতও জারি রয়েছে৷ দনিয়েৎস্ক অঞ্চলের বেশ কয়েকটি শহরে জোরালো সংঘর্ষের কথা জানিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের ওলেক্সি আরেস্তোভিচ৷ খেরসন শহর থেকে সেনা প্রত্যাহার করলেও রুশ বাহিনী দনিয়েৎস্ক অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণের প্রতি মনোযোগ দিচ্ছে বলে ইউক্রেনের বাহিনী মনে করছে৷ এর আগে খারকিভ-সহ যে সব এলাকা হাতছাড়া হয়ে গিয়েছিল, সেগুলি পুনর্দখলেরও চেষ্টা চালাচ্ছে রুশ বাহিনী৷ মার্কিন সেনাবাহিনীর সর্বোচ্চ কর্মকর্তা জেনারেল মার্ক মিলে-র মতে, ব্যর্থতা সত্ত্বেও এখনো ইউক্রেনে রুশ বাহিনীর যথেষ্ট সামরিক শক্তি থাকায় অদূর ভবিষ্যতে তাদের পুরোপুরি পরাজিত করার সম্ভাবনা কম৷

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button