আলোচিতজাতীয়সারাদেশ

এএসপি-এসপিদের মতো বেল্ট ও ক্যাপ থাকছে না পুলিশ পরিদর্শকদের!

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : পুলিশের ক্যাডার, নন-ক্যাডার কর্মকর্তাদের বেল্ট ও ক্যাপে ভিন্নতা চায় সদর দফতর। ২০১২ সালে নন-ক্যাডার কর্মকর্তাদের গ্রেডে উন্নতি হলেও ড্রেসকোডের পরিবর্তন হয়নি। এবার ড্রেসকোডের সমন্বয় করা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) ও পুলিশ সুপার (এসপি) পদমর্যাদার কর্মকর্তা ও পরিদর্শক পদমর্যাদার সদস্যরা একই বেল্ট ও ক্যাপ পরেন। তবে নতুন প্রস্তাবে পরিদর্শকদের জন্য আলাদা বেল্ট ও ক্যাপের কথা ভাবা হয়েছে। এজন্য পরিদর্শকদের জন্য ভিন্ন বেল্ট ও ক্যাপ তৈরি করা হয়েছে। নতুন ডিজাইনের এসব ক্যাপ ও বেল্ট সরবরাহ করার উদ্যোগ নিলেও পরিদর্শকরা তা নিচ্ছেন না। পরিদর্শক পদমর্যাদার পুলিশ কর্মকর্তারা আগের বেল্ট ও ক্যাপেই থাকতে চান।

এ বিষয়ে রোববার (৩১ জুলাই) বিকাল ৩টায় পুলিশ সদর দফতরে অতিরিক্ত আইজিপি এসএম রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে একটি সভা অনুষ্ঠিত হবে।

সভায় পুলিশের সকল ইউনিট প্রধানদের উপস্থিত থাকার অনুরোধ করা হয়েছে। ইউনিট প্রধানরা উপস্থিত না থাকতে পারলেও অন্তত পুলিশ সুপার পদমর্যাদার একজন প্রতিনিধিকে সভায় অবশ্যই উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।

পুলিশ সদর দফতরের অতিরিক্ত ডিআইজি (লজিস্টিকস) মোহাম্মদ আতাউল কিবরিয়ার সই করা বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ‘বাংলাদেশ পুলিশের পুলিশ পরিদর্শকদের প্রথম শ্রেণিতে এবং এসআই/সার্জেন্টদের দ্বিতীয় শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করা বিধায় উক্ত পদমর্যাদার কর্মকর্তাদের র‌্যাংক-ব্যাজ, বেল্ট, ক্যাপ এবং পোশাক সমন্বয়ের বিষয়ে পুলিশ সদর দফতরের হল অব হারমনিতে সভা অনুষ্ঠিত হবে।’

পুলিশ সদর দফতরের একটি সূত্র জানিয়েছে, পুলিশ বাহিনীতে কনস্টেবলদের জন্য আলাদা ক্যাপ ও বেল্ট। এরপর র‌্যাংক অনুযায়ী উপ-সহকারী পরিদর্শক (এএসআই) ও সহকারী পরিদর্শক (এসআই) একই বেল্ট ও ক্যাপ পরেন। তাদের পরে পরিদর্শক, সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এডিশনাল এসপি) ও পুলিশ সুপার (এসপি) পদমর্যাদার পুলিশ সদস্যরা একই বেল্ট ও ক্যাপ পরেন।

অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শক (এডিশনাল ডিআইজি) ও উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) একই বেল্ট পরেন। এরপর প্রতিটি র‌্যাংক অনুযায়ী আলাদা বেল্ট ও ক্যাপ পরেন পুলিশ কর্মকর্তারা। এছাড়াও এডিশনাল ডিআইজি রিবন পরেন এবং কাঁধে পুলিশ লেখা থাকে না।

একাধিক পুলিশ পরিদর্শকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা বর্তমানে যে বেল্ট ও ক্যাপ পরেন তাই অব্যাহত রাখতে চান। তাদের দাবি, তারা নবম গ্রেডের কর্মকর্তা। তাদের র‌্যাংক ব্যাজ যেন অন্যান্য বাহিনীর সঙ্গে সমন্বয় করে করা হয়।

সদর দফতর সূত্র জানিয়েছে, পরিদর্শক পদমর্যাদার সদস্যদের জন্য নতুন বেল্ট ও ক্যাপ পুলিশ সদর দফতরের লজিস্টিকস বিভাগ থেকে সরবরাহ করা হলেও নতুন ডিজাইনেরে এসব ক্যাপ ও বেল্ট তারা উত্তোলন করেননি।

২০১২ সালে বর্তমান সরকার পুলিশের এএসআই থেকে পরিদর্শক পর্যন্ত পদমর্যাদার গ্রেডের উন্নতি করে। এএসআই ও এসআই তৃতীয় শ্রেণি থেকে দ্বিতীয় শ্রেণিতে এবং পরিদর্শকদের দ্বিতীয় থেকে প্রথম শ্রেণিতে উন্নতি করা হয়। তবে তারা আগের র‌্যাংক ব্যাজ ও ড্রেস কোড পরেন।

বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম বলেন, আমাদের গ্রেডের উন্নতি হয়েছে কিন্তু আমাদের ড্রেস কোডের কোন পরিবর্তন হয়নি। আমার যখন দ্বিতীয় শ্রেণির ছিলাম, তখনও যে ড্রেসকোড ছিল এখনও তাই আছে। এটা হবে কেন? তাই আমরা একটি প্রস্তাব ২০১৫ সালে দিয়েছিলাম। সেখানে আমরা দাবি করেছিলাম, পরিদর্শকদের দুটি পিপস, এসআইদের একটি পিপস এবং এএসআইদের দুটি স্টার। এনিয়ে আগামী কাল একটি বৈঠক আছে। আমরা বৈঠকে আমাদের দাবির কথা বলবো।

তিনি বলেন, আমরা নিজেরাই পরিবর্তনের দাবি জানিয়েছি। কেবল বেল্ট বা ক্যাপ না। আগামীকাল মিটিংয়ের পর এ বিষয়ে বিস্তারিত বলতে পারবো। এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি।

 

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button