আলোচিত

চুরি হওয়া স্মার্ট ফোন উদ্ধারের পর জমা না দিয়ে নিজেদের জিম্মায়, পরিদর্শকসহ ক্লোজ ৭

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : বগুড়ার সান্তাহার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কার্যালয় থেকে চুরি হওয়া শতাধিক স্মার্ট ফোন উদ্ধারের পর তা পুলিশের কাছে জমা না দিয়ে নিজেদের জিম্মায় রাখার ঘটনায় ৭ জনকে ঢাকা কার্যালয়ে ক্লোজ করা হয়েছে।

মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর পাতায় মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন, অর্থ ও পরিকল্পনা) কাজী আবেদ হোসেনের স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশ পত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে বিভিন্ন অনলাইন ও পত্রিকায় ‘চুরির শতাধিক মোবাইল ফোন মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর থেকে উদ্ধার’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়। এর পরই তাদেরকে ঢাকায় ক্লোজ করার এই আদেশ দেয়া হয়েছে।

ক্লোজকৃতরা হলেন, বগুড়ার (খ সার্কেল) সান্তাহার মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের সার্কেল লুৎফর রহমানের পরিদর্শক মোহাম্মদ লুৎফর রহমান, উপ-পরিদর্শক শামীমা আক্তার, সহকারি উপ-পরিদর্শক মো. জাহাঙ্গীর আলম, সিপাহী মো. জুলফিকার রহমান, মো. সালাহ উদ্দিন, মো. জামিল আক্তার ও মো. শুভ হোসাইন। এই অফিস আদেশে আরো বলা হয়েছে, জনস্বার্থে পুনরাদেশ না দেয়া পর্যন্ত প্রশাসনিক কারণে তাদের ঢাকায় সংযুক্ত করা হলো। আদেশে জরুরী ভাবে ৩ জুলাইয়ের মধ্যে সান্তাহার কর্মস্থল থেকে অবমুক্ত হওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়।

বগুড়ার আদমদিঘী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল করিম রেজা সংবাদ মাধ্যমকে জানান, স্মার্ট মোবাইল ফোন উদ্ধারের ঘটনায় সান্তাহার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর থেকে কোন আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এমনকি কোন তথ্যও জানানো হয়নি অধিদপ্তর থেকে। বগুড়া মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রাজিউর রহমানের সেল ফোনে যোগাযোগ করা হলে সান্তাহার মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক, উপ-পরিদর্শকসহ ৭ জনকে ঢাকা কার্যালয়ে ক্লোজ করার বিষয়টি জানা নেই বলে সেল ফোনের সংযোগ বিছিন্ন করে দেন।

নওগাঁ সদর থানার ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল সংবাদ মাধ্যমকে জানান, ঘটনাটি গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পেরে ১ জুলাই (শুক্রবার) মধ্যে রাতে সান্তাহার মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কার্যালয় থেকে ১০৭টি স্মার্ট ফোন উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। বাঁকি ৩৩টি ফোনগুলো উদ্ধারে কাজ চলার পাশাপাশি অধিদপ্তরের কর্তা-কর্মচারিরা থানায় জমা না কি উদ্দ্যেশে রেখে দিয়েছিলেন সেই বিষয়টিও ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। এর তদন্ত করে সঠিক কারণ উৎঘাটন করে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৫ জুন রাতে নওগাঁ শহরের পুরাতন বাস স্টান্ড এলাকায় স্যামসাং ও ভিবো মোবাইল ফোনের শোরুম থেকে প্রায় কোটি টাকা মূল্যের ১৪০টি স্মার্ট মোবাইল ফোন চুরি হয়ে যায়। ঘটনায় পরদিন নওগাঁ সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের হলে পুলিশ মোবাইল উদ্ধারে তদন্ত শুরু করে। তদন্তের এক পর্যায়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নওগাঁ জেলা পুলিশের সদর সার্কেল ও সদর থানা ওসি নেতৃত্বে ১ জুলাই (শুক্রবার) মধ্যে রাতে সান্তাহার মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরে অভিযান চালিয়ে ৫০ লাখ টাকা মূল্যের ১০৭টি স্মার্ট ফেন উদ্ধার করে। তবে বাঁকিগুলো এখানো উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button