অর্থনীতিআইন-আদালতআলোচিত

কর্মচারীদের ৪৩৭ কোটি টাকা দিতে রাজি, তাই ড. ইউনূসের ১১০ মামলা প্রত্যাহার

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূসের তৈরি ‘অলাভজনক’ প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ টেলিকম পাঁচ বছরের আইনি লড়াই শেষে কর্মচারীদের দাবি করা ৪৩৭ কোটি টাকা দিতে রাজি হয়েছে। এ কারণে ১৭৬ জন কর্মচারীর মামলাও প্রত্যাহার করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট পক্ষের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এরই মধ্যে টাকা দেয়া শুরু হয়েছে এবং আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে দেয়া শেষ হবে। টাকা দেয়া হচ্ছে গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের মাধ্যমে। ১৭৬ জন কর্মচারীর প্রতিজন গড়ে দেড় কোটি থেকে তিন টাকা করে পাচ্ছেন।

কী নিয়ে মামলা

গ্রামীণ টেলিকম এবং গ্রামীণ ফোন দুইটি আলাদা প্রতিষ্ঠান। তবে গ্রামীণ ফোনে গ্রামীণ টেলিকমের ৩৪ ভাগেরও বেশি শেয়ার রয়েছে। গ্রামীণ টেলিকমে যারা কাজ করেন, তারা চাকরির শর্ত অনুযায়ী লাভের শতকরা পাঁচ ভাগের দাবিদার। ২০১১ সালে গ্রামীণ ফোন থেকে যখন গ্রামীণ টেলিকম লভ্যাংশ পাওয়া শুরু করে, তখন থেকে কর্মচারীদের বিরোধ শুরু হয় গ্রামীণ টেলিকমের ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে। কর্মচারীরা গ্রামীণ ফোন থেকে পাওয়া লভ্যাংশের পাওনা দাবি করে। কিন্তু গ্রামীণ ফোন কর্র্তৃপক্ষ তা দিতে নারাজ ছিল। এই নিয়ে কর্মচারীরা প্রতিবাদ ও নানা কর্মসূচি পালন শুরু করেন।

ড. মুহাম্মদ ইউনূস গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান। ২০১৭ সালে গ্রামীণ টেলিকমের ১৭৬ জন কর্মচারী ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও গ্রামীণ টেলিকমের বিরুদ্ধে মোট ১১০টি মামলা করেন। এর মধ্যে ৬টি মামলা হয় হাইকোর্টে। আর ১০৪টি মামলা হয় শ্রম আদালতে৷ কর্মচারীরা মোট প্রায় ৪৩৭ কোটি টাকা দাবি করে আসছিলেন। এই নিয়ে দুই পক্ষই আইনি লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন। মামলায় ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও জারি হয়েছিল ২০১৯ সালের ৯ অক্টোর। তখন গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতের চেয়ারম্যান রহিবুল ইসলাম। তখন তিনি দেশের বাইরে ছিলেন।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত আদালতের বাইরে এই বিরোধ নিস্পত্তি হওয়ায় কর্মচারীরা তাদের মামলা প্রত্যাহার করে নেন।

সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি মোহাম্মদ খুরশিদ আলম সরকারের আদালতে করা গ্রামীণ টেলিকমের অবসান চেয়ে যে আবেদন কর্মচারিদের আইনজীবী করেছিলেন, তা-ও খারিজ হয়।

কেন টাকা দেয়া হচ্ছে কর্মচারীদের?

গ্রামীণ টেলিকম কর্মচারীদের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. ইউসুফ আলী বলেন, ‘‘গ্রামীণ টেলিকম শেষ পর্যন্ত শ্রম আইন অনুযায়ী কর্মচারীদের লাভের শতকরা পাঁচ ভাগ দিতে রাজি হয়েছে। এ নিয়ে আদালতের বাইরে দুই পক্ষের সাথে চুক্তি হয়েছে৷ সেই চুক্তি অনুযায়ী কর্মচারীরা মামলা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।”

‘আসলে চুবানি দিয়েছি আমি’

অ্যাডভোকেট মো. ইউসুফ আলী আরো বলেন, ‘‘আগেই এই চুক্তি হয়েছে৷ আমি ফেসবুকে দেখলাম প্রধানমন্ত্রী চুবনি দেয়ার কথা বলার কারণে নাকি এটা হয়েছে। এই কথা ঠিক না। তার আগেই সেটেলমেন্ট অ্যাগ্রিমেন্ট হয়েছে। আসলে চুবানি দিয়েছি আমি। আমি যখন গত মার্চে কোম্পানি আইনে আদালতে গ্রামীণ টেলিকম অবসানের (উইন্ডআপ) আবেদন করেছি, তার পরের দিনই তাদের আইনজীবী আমাকে ফোন করে সেটেলমেন্টের প্রস্তাব দেয়। কারণ, গ্রামীণ ফোনের ৩৪ ভাগ শেয়ার তাদের। বছরে তারা এক হাজার কোটি টাকা লভ্যাংশ পায়। কোম্পানি বন্ধ হয়ে গেলে এই লভ্যাংশ আর তারা পেতো না। এটাই হলো আসল চুবানি।”

‘এর সাথে প্রধানমন্ত্রীর চুবানির কোনো সম্পর্ক নেই’

গ্রামীণ টেলিকমের আইনজীবী ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘‘চুক্তি অনুযায়ী এরই মধ্যে টাকা দেয়া শুরু হয়েছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সব টাকা দিয়ে দেয়া হবে। তবে টাকা দেয়া হচ্ছে কর্মচারী ইউনিয়নের মাধ্যমে।”

তিনি বলেন, ‘‘গ্রামীণ টেলিকমের নিজস্ব ব্যবসা খুব বেশি নাই। কোম্পানি চাচিছলো সেই ব্যবসার শতকরা পাঁচ ভাগ লভ্যাংশ কর্মচারীদের দিতে। কিন্তু তারা গ্রামীণ ফোন থেকে পাওয়া লভ্যাংশও দাবি করে আসছিল। শেষ পর্যন্ত গ্রামীণ টেলিকম সেটাও দিতে রাজি হয়ে চুক্তি করায় তারা মামলা প্রত্যাহার করেছে। তবে কর্মচারীরা ওই টাকার সুদ থেকে একটি অংশ ছাড় দিয়েছে। আর কর্মচারীরা এই টাকা পাওয়ার পর কোম্পানি ছেড়ে চলে যাবে বলে চুক্তি করেছে।”

তিনি বলেন, ‘‘এর ফলে কর্মচারীরা প্রত্যেকে দেড় থেকে তিন কোটি টাকা করে পাচ্ছেন। তবে গ্রামীণ টেলিকমের নিজস্ব যে ব্যবসা আছে, সেগুলো আর থাকবে না। কর্তৃপক্ষ কোম্পানিটি আলাদা ফর্মে নিয়ে যাবেন, নতুন পরিচিতি তৈরি হবে। ফলে ওই কর্মচারীরাও আর চাকরিতে থাকছেন না।”

তার কথা, ‘‘এর সাথে প্রধানমন্ত্রীর নাকানি চুবানির কোনো সম্পর্ক নেই। এই বিরোধটি ছিল গ্রামীণ টেলিকমের এখন সাবেক হয়ে যাওয়া কর্মচারী এবং গ্রামীন টেলিকমের মধ্যে। প্রফেসর ইউনূসের সাথে কোনো বিরোধ এটা নয়। আর কর্মচারীদের সাথে সমঝোতা হয় এক মাস আগে।”

তবে এনিয়ে কথা বলার জন্য চেষ্টা করেও কর্মচারী ইউনিয়নের দায়িত্বশীল কোনো নেতাকে পাওয়া যায়নি।

গ্রামীণ টেলিকমের বিবৃতি

প্রতিষ্ঠানটির পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘‘গ্রামীণ টেলিকম কোম্পানি আইনের ২৮ ধারায় সৃষ্ট একটি নট ফর প্রফিট কোম্পানি। এই আইনে সৃষ্ট প্রতিষ্ঠানে কোনো মালিক থাকে না। যেহেতু শেয়ারহোল্ডার থাকে না, সেজন্য এর মুনাফাও বন্টনযোগ্য নয়। প্রফেসর ইউনূস এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের মালিক হবার কোনো সুযোগ নেই। এই কোম্পানী ও অন্য কোনো কোম্পানী থেকে তিনি কোনো বেতনও নেন না।”

প্রফেসর ইউনূস এ পর্যন্ত বহুবার বলেছেন যে, বাংলাদেশ কিংবা পৃথিবীর অন্য কোনো দেশের কোনো কোম্পানিতে তার কোনো শেয়ার বা মালিকানা নেই।

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button