আলোচিতজাতীয়

নির্বাচন কমিশন গঠন: আলোচনায় রয়েছে যাদের নাম

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : আগামী ১৪ ফেব্রয়ারি বিদায় নিচ্ছেন বর্তমান প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন। নুরুল হুদা কমিশন বিদায় নেওয়ার পর কারা আসছেন নতুন কমিশনে, কে হচ্ছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার, কারা থাকছেন কমিশনার হিসাবে! এ নিয়ে চারদিকে চলছে জোর আলোচনা। চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। নানামহলে উচ্চারিত হচ্ছে বিভিন্ন ব্যক্তির নাম। তবে সার্চ কমিটির সুপারিশের পর সব কিছুই চূড়ান্ত করবেন রাষ্ট্রপতি। কিন্তু তার আগেই বিভিন্ন মহলে সম্ভাব্য কারা থাকছেন তাদের নাম নিয়ে চলছে জল্পনা কল্পনা। এ নিয়ে সাধারণ মানুষের মাঝেও ব্যাপক আগ্রহ রয়েছে। অনেকের মুখে মুখে ভেসে বেড়াচ্ছে বেশ কিছু সম্ভাব্য নাম।

জানা গেছে, নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করতে গত ৫ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপতি সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচাপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে ৬ সদস্যবিশিষ্ট সার্চ কমিটি গঠন করেছেন। কমিটি আগামী ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য ১০ জনের নাম সুপারিশ করবেন। সুপারিশকৃত নামের তালিকা থেকে রাষ্ট্রপতি একজন প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও চার জন কমিশনারের নাম চুড়ান্ত করবেন। এরইমধ্যে গত রোববার (৬ ফেব্রুয়ারি) সার্চ কমিটির প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠক শেষে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও নাগরিকদের কাছে প্রধান নির্বাচন কমিশার ও অনান্য কমিশনার পদে যোগ্য ব্যক্তিদের নাম দেওয়ার আহ্বান করা হয়েছে।

সিইসি ও কমিশনার হিসেবে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে: প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও কমিশনার হিসাবে বিভিন্ন মুখে মুখে বেশ কিছু লোকের নাম আলোচনায় এসেছে।এদের মধ্যে সিইসি হিসাবে আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন সাবেক কেবিনেট সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, অর্থ মন্ত্রণালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ, সাবেক পিএসসি‘র চেয়ারম্যান মুহাম্মদ সাদিক। এ ছাড়াও সাবেক প্রধান বিচাপতি খায়রুল হকের নামও আলোচনায় রয়েছে।

অন্যদিকে সাবেক স্বাস্থ্য ও নির্বাচন কমিশন সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম, স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক তোফায়েল আহমেদ, সাবেক সেনা প্রধান ইকবাল করিম ভূঁইয়া, সাবেক প্রধান তথ্য কমিশনার অধ্যাপক গোলাম রহমান, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সালদার হোসেন, সাবেক অতিরিক্ত সচিব জেসমিন তুলি, ইসির যুগ্মসচিব আবুল কাসেম এর নামও কমিশনার হিসাবে আলোচনায় রয়েছে।

জানা গেছে, বরাবরের মতো এবারও পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট নির্বাচন কমিশনে একজন সিনিয়র আমলা রাখার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়াও সামরিক বাহিনী থেকে একজন, বিচারবিভাগ থেকে একজন রাখা হতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে। পাশাপাশি এবার কমিশনে একজন শিক্ষাবিদকে রাখা হচ্ছে বলে আলোচনা আছে। থাকতে পারে সুশীল সমাজের কোনো প্রতিনিধিও।

এদিকে নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনে সরকার গঠিত ৬ সদস্যবিশিষ্ট সার্চ কমিটি যাতে সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য, ‍দক্ষ ও নিরপেক্ষ লোকদের নিয়ে ইসি গঠন করেন এমন প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন দেশের বিশিষ্টজনেরা।তাদের মতে, একমাত্র দক্ষ ও যোগ্য লোকদের নিয়ে গঠিত নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমেই দেশে অবাধ ও সুষ্ঠু গ্রহনযোগ্য নির্বাচন করা সম্ভব।এতে করে সাধারণ জনগণ তাদের ভোটাধিকার প্রযোগ করতে পারবেন।

এ ব্যাপারে বিশিষ্ট আইনজীবি অ্যাডভোকেট শাহদীন মালিক বলেন, ‘আমরা আশা করি সার্চ কমিটি অনুসন্ধান করে ১০ জনের নামের তালিকা চূড়ান্ত করার আগে তা জনসম্মুখে প্রকাশ করবেন। এটি করা হলে কমিটির গ্রহণযোগ্যতা বাড়বে। খসড়া তালিকা প্রকাশের পর সেখান থেকে সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য এমন ৫ জনের নাম নিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন করলে তাদের গ্রহণযোগ্যতা বাড়বে। অন্যথায় তা প্রশ্নের মুখে পড়বে।’

অন্যদিকে সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন সাধারণ সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ‘সার্চ কমিটির কাজ হলো দক্ষ নিরপেক্ষ লোকদের খুঁজে বের করা। এইক্ষেত্রে তারা যদি সরকারের পছন্দের লোকদের নিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন করেন তাহলে সার্চ কমিটি প্রশ্নের মুখে পড়বে।’

তিনি বলেন, ‘আইন অনুযায়ী সার্চ কমিটি সমাজের সবার কাছে গ্রহণযোগ্য এমন ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে নাম প্রস্তাব করতে হবে। এইক্ষেত্রে কোনো দলের প্রতি আনুগত্য কিংবা সমাজে যাদের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে এমন ব্যক্তিদের নিয়ে যেন কমিশন গঠন করা না হয়।’

 

সূত্র: সারাবাংলা

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button