আলোচিতরাজনীতি

বিতর্কে না জড়াতে ছাত্রলীগকে নির্দেশ আওয়ামী লীগের

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : ছাত্রলীগকে বিতর্কে না জড়াতে আওয়ামী লীগের নেতারা নির্দেশ দিয়েছেন। সম্প্রতি ঘোষিত কয়েকটি কমিটি নিয়ে বিতর্ক ওঠায় সংগঠনটির শীর্ষ দুই নেতার সমালোচনাও করেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা।

মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) বিকালে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় শাখা এবং ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ শাখা নেতাদের সঙ্গে বৈঠক হয়। বৈঠকে ছাত্রলীগ যেন বিতর্কিত কর্মকান্ডে না জড়ায় এবং বিতর্কিতরা প্রশ্রয় না পায়- সে বিষয়েও আওয়ামী লীগ নেতারা তাদের সতর্ক করেন।

বৈঠকে উপস্থিত একাধিক নেতা সংবাদ মাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

সূত্র জানায়, ছাত্রলীগের ঐতিহ্যের কথা স্মরণ করিয়ে আগামী দিনে যেসব কমিটি দেওয়া হবে, সেখানে ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করারও নির্দেশ দেওয়া হয়। একই সঙ্গে চলমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা, বন্যা ও শোকাবহ আগস্টে মানবিক কাজে যুক্ত থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়। এ সময় বিগত দিনে মানবিক কর্মকা-ে যুক্ত থাকার জন্য তাদের ধন্যবাদ দেন কেন্দ্রীয় নেতারা। অনির্ধারিত এই বৈঠকের

পরে জাহাঙ্গীর কবির নানক সাংবাদিকদের বলেন, করোনার চলমান পরিস্থিত, ঈদ, সামনে শোকাবহ আগস্ট ও বন্যার শঙ্কা প্রভৃতি বিষয় নিয়ে ছাত্রলীগ নেতাদের সঙ্গে গতকাল কথা হয়। করোনা মোকাবিলায় আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তারা মানবিক কর্মকা-ে যুক্ত ছিল। সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখার জন্য তাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। মানবিক কর্মকা-ের সঙ্গে যুক্ত থেকে শোকাবহ আগস্টের কর্মসূচি পালনের কথাও বলেছি।

আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ছাত্রলীগের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসের সাথে সামঞ্জস্য রেখে করোনার এই সময় ছাত্রলীগ যে মানবিক ছাত্রলীগে পরিণত হয়েছে আমরা তাকে সাধুবাদ জানাই। এই কঠিন সময়ে ছাত্রলীগ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে, সেই ধারাবাহিকতাকে সামনে রেখে বিশেষ করে বন্যার ঘনঘটা শুরু হচ্ছে, এ সময় ছাত্রলীগকে মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে।

নাছিম বলেন, পবিত্র ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে জীবন ও জীবিকার প্রয়োজনে লকডাউন শিথিল করা হয়েছে। অতীতে ছাত্রলীগ যেভাবে কাজ করেছে, লকডাউন যখন শিথিল হচ্ছে তখনও ছাত্রলীগ যেন তৃণমূল পর্যায়ে মানুষকে সচেতন করে, তাদের ক্ষুধায় কষ্ট পেতে না হয় সে জন্য দুস্থ মানুষদের সহযোগিতা করবে ছাত্রলীগ। সারাদেশে তৃণমূল পর্যায় থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত সবাইকে সাথে নিয়ে মানুষকে সচেতন করবে, সহযোগিতা করবে।

অন্যদের মধ্যে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল, অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজি, ইকবাল হোসেন অপু, ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়, সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সনজীত চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহীম হোসেন, দক্ষিণের সভাপতি মেহেদী হাসান প্রমুখ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close