গাজীপুর

নানা নাটকীয়তার পর কালীগঞ্জে ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মামলা!

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : কালীগঞ্জে প্রাইভেট পড়ে বাড়ি ফেরার পথে ষষ্ঠ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে উঠিয়ে নিয়ে ধর্ষণের ঘটনায় থানায় এজাহার দায়েরের দুই সপ্তাহ পর নানা নাটকীয়তা শেষে অবশেষে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা নথিভুক্ত করেছে পুলিশ!

ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টায় জড়িত ছিল কথিত এক সাংবাদিক।

সোমবার (৭ জুন) বিকেল সাড়ে ৩ টার সময় মামলা নথিভুক্ত করা হলেও বিষয়টি নিয়ে কঠোর গোপনীয়তা রক্ষা করে পুলিশ। এমনকি মামলার নথিও দেয়া হয়নি বাদীকে।  

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান।

অভিযুক্তের নাম শন্তুশ পাল (৫০)। তিনি কালীগঞ্জের বক্তারপুর ইউনিয়নের কৌচান গ্রামের মৃত উমা কান্ত। আর ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টায় জড়িত কথিত সাংবাদিক কালীগঞ্জ পৌরসভার মুনশুরপুর গ্রামের মোহাম্মদ আল-আমিন।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী (১০) বক্তারপুর ইউনিয়নের এক নরসুন্দরের (নাপিত) মেয়ে। ভুক্তভোগী স্থানীয় একটি উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী। মামলার বাদী ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বাবা।

জানা গেছে, ধর্ষণের ঘটনায় এজাহার দায়ের করার পর পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। পরে ঘটনা আপোষ মীমাংসা করার জন্য জোড়পূর্বক বাদীর কাছ থেকে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয় আল-আমিন নামে কথিত এক সাংবাদিক। পরবর্তীতে আল-আমিনকে আসামি করে বাদী পূণরায় ধর্ষণের ঘটনায় এজাহার দায়ের করলেও পুলিশ তা গ্রহণ করেনি। এজাহার পরিবর্তন করে কথিত ওই সাংবাদিকের নাম বাদ দিয়ে পুলিশ ধর্ষণের বদলে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা নথিভুক্ত করেছে।

ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টায় জড়িত কথিত সাংবাদিক মোহাম্মদ আল-আমিন।

কালীগঞ্জে ৫’শ টাকায় ‘সাংবাদিকতার আইডি কার্ড’ বিক্রি করতে চষে বেড়াচ্ছে আল-আমিন!

মামলার এজাহার ও ২২ ধারা অনুযায়ী ভিকটিমের জবানবন্দি রেকর্ডের জন্য আদালতে করা পুলিশের আবেদন সূত্রে জানা যায়, ‘ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী তার বাড়ির পাশের এক বাড়িতে নিয়মিত প্রাইভেট পড়ে। আসা-যাওয়ার পথে অভিযুক্ত শন্তুশ পাল ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন ভাবে উত্ত্যক্ত করতো। এ নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে কথাকাটাটি হয়। পরে গত ১০ মে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী অভিযুক্ত শন্তুশ পালের বাড়িতে গিয়ে ফুল গাছের চারা তুলে ফেলে এবং শন্তুশের একটি লুঙ্গিতে কাদামাটি লাগিয়ে দেয়। এরপর অভিযুক্ত শন্তুশ ওই শিক্ষার্থীর মায়ের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ দেয়। পরে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর কাছে তার মা ঘটনা জানতে চাইলে সে জানায়, গত ২৪ মার্চ সন্ধ্যা অনুমানিক ৭টার দিকে প্রাইভেট পড়া শেষ করে বাড়ি ফেরার পথে শন্তুশ রাস্তা থেকে তাকে জোড়পূর্বক তুলে শন্তুশের বাড়ির বারান্দায় নিয়ে যায়। পরে জোড়পূর্বক ভুক্তভোগীর পড়নের কাপড় খুলে তাকে ধর্ষনের চেষ্টা করে শন্তুশ। ওই সময় ভুক্তভোগীর ডাক-চিৎকার শুরু করলে ঘটনা গোপন রাখার জন্য তাকে ৪’শ টাকা দেয়ার চেষ্টা করে শন্তুশ। পরে ভুক্তভোগী টাকা না নিয়ে কান্নাকাটি করে বাড়ি চলে যায়। এরপর বিভিন্ন সময় ভুক্তভোগীকে একা পেলে তার শরীরের হাত দেয়ার চেষ্টা করে অভিযুক্ত শন্তুশ। আর এজন্যই ভুক্তভোগী শন্তুশের বাড়ির ফুলগাছের চারা উত্তোলন করে এবং তার লুঙ্গিতে কাদামাটি লাগিয়ে দেয়।’

অপরদিকে ঘটনা অনুসন্ধান করে জানা যায় ভিন্ন তথ্য। ঘটনার পর গত ১৯ মে ভুক্তভোগীর বাবা বাদী হয়ে থানায় প্রথমে লিখিত একটি এজাহার দায়ের করে।

ওই এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী বিগত দুই মাস পূর্বে অনুমানিক সাড়ে ৭টার দিকে প্রাইভেট পড়া শেষ করে একা বাড়ি ফেরার পথে রাস্তা থেকে জোড়পূর্বক তাকে তুলে শন্তুশের বাড়ির বারান্দায় নিয়ে যায়। ওই সময় ডাক-চিৎকার শুরু করলে ভুক্তভোগীর মুখে চেতনা নাশক দ্রব্য মাখা রুমাল দিয়ে তাকে অজ্ঞান করে স্বার্থ চরিতার্থ (ধর্ষণ) করার কার্য সিদ্ধি করে শন্তুশ পাল। পরে ভুক্তভোগীর জ্ঞান ফিরে আসলে নিজেকে উলঙ্গ অবস্থায় পরে থাকতে দেখে। ওই সময় ঘটনা গোপন রাখার জন্য তাকে ৪’শ টাকা দেয়ার চেষ্টা করে শন্তুশ।  পরে ভুক্তভোগী টাকা না নিয়ে কান্নাকাটি করে বাড়ি চলে যায়। তখন কাটাকাটির বিষয়ে জানতে চাইলে ভুক্তভোগী ভয়ে কিছুই বলেনি। এরপর ভুক্তভোগীর সরলতার সুযোগ নিয়ে একা পেলে তার শরীরে হাত দেয়ার চেষ্টা করে অভিযুক্ত শন্তুশ।

থানায় দায়ের করা পরপর দুইটি এজাহার, স্থানীয় সূত্র ও ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর পরিবারের দেয়া তথ্য অনুযায়ী জানা যায় এই ঘটনার নানা নাটকীয়তা সম্পর্কে।

নাটকীয়তার প্রথম পর্ব: গত ১৯ মে প্রথম অভিযোগ দায়েরের পর ঘটনা তদন্তের দায়িত্ব পান কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান। তদন্তের দায়িত্ব পেয়ে ওই দিনই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন তিনি। এরপর আরো একদিন ওই এলাকায় ঘটনা তদন্ত করতে যায় এসআই মনিরুজ্জামান। কিন্তু আইনানুগ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করেই তদন্ত বন্ধ করে রাখেন তিনি। পরে গত ৫ জুন অনুমানিক সকাল ৭টার দিকে কালীগঞ্জের মুনশুরপুর গ্রামের আল আমিন(৩২) এবং অজ্ঞাত দুই-তিনজন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বাড়িতে গিয়ে নিজেদের সাংবাদিক পরিচয় দেয়। পরে ভয়ভীতি দেখিয়ে থানায় দায়ের করা অভিযোগ আপোষ মীমাংসার করার কথা বলে বাদীর কাছ থেকে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয় তারা।

নাটকীয়তার দ্বিতীয় পর্ব: পরবর্তীতে গত ৭ জুন সকালে সকল ঘটনার বিস্তারিত উল্লেখ করে কথিত সাংবাদিক আল আমিনসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে পূণরায় এজাহার দায়ের করে ভুক্তভোগীর বাবা। পুলিশ ওই এজাহার গ্রহণ না করে থানায় নতুন করে এজাহার লিখে বাদীর স্বাক্ষর রাখে। এরপর ৭ জুন দুপুর ৩টা ৩০ মিনিটে “২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন”-এর ৯(৪)(খ) ধারায় জোড় পূর্বক ধর্ষণ চেষ্টার মামলা নথিভুক্ত করে পুলিশ {মামলা নাম্বার ৯(৬)২১}। কিন্তু মামলার এজাহার ও এফআইআরের কপি বাদীকে দেয়নি পুলিশ।

এদিকে ৮ জুন (মঙ্গলবার) ২২ ধারা অনুযায়ী ভিকটিমের জবানবন্দি রেকর্ডের জন্য ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে গাজীপুর আদালতে পাঠায় মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বাবা বলেন, মামলা নথিভুক্ত করলেও বুধবার দুপুর পর্যন্ত মামলার কোন নথিপত্র আমাদের দেয়নি পুলিশ। তাই মামলার বিষয়ে এখনো বিস্তারিত কোন তথ্য জানাতে পারছি না।

কথিত সাংবাদিক আল-আমিনের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করলেও তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান বলেন, এজাহার দায়ের করার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছিল। অন্য কোন তথ্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি।

 

আরো জানতে……

কালীগঞ্জে হত্যার ভয় দেখিয়ে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ, সাবেক ছাত্র নেতাকে খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ

কালীগঞ্জে হত্যার ভয় দেখিয়ে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ, সাবেক ছাত্র নেতার বিরুদ্ধে মামলা

কালীগঞ্জে হত্যার ভয় দেখিয়ে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ, অভিযোগ সাবেক ছাত্র নেতার বিরুদ্ধে

কালীগঞ্জে ৯৩ দিনে ধর্ষণের শিকার ৩ ছাত্রীসহ ৫ জন, আরও ৩ ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা!

কালীগঞ্জে ‘বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার’ অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী: ধর্ষক গ্রেপ্তার

কালীগঞ্জে এক সপ্তাহের ব্যবধানে এবার তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা

কালীগঞ্জে এবার সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ‘মুদি দোকানে আটকে রেখে ধর্ষণ’: ধর্ষক গ্রেপ্তার

কালীগঞ্জে পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ চেষ্টা: লম্পট চাচা গ্রেপ্তার

কালীগঞ্জে চটপটির দোকানে তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণ: আদালতে দায় স্বীকার করলো ধর্ষক

কালীগঞ্জে চাচিকে ধর্ষণ: ১৬ দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি সফিকুল, শঙ্কায় ভুক্তভোগীর পরিবার!

কালীগঞ্জে চাচিকে ধর্ষণ করল ভাসুরের ছেলে, থানায় মামলা

কালীগঞ্জে জমি কেনার টাকা নিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ, অভিযুক্ত ফারুক পলাতক

কালীগঞ্জে প্রথম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে ‘ধর্ষণের চেষ্টা’, ট্রাক ড্রাইভার আটক

কালীগঞ্জে প্রতিবন্ধী এক যুবতীকে ধর্ষণ, লম্পট সোহেল গ্রেপ্তার

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close