গাজীপুর

খসড়া তালিকা অনুযায়ী কালীগঞ্জ পৌরসভার মোট ভোটার ৩৯ হাজার ৮৩৫ জন, ভোট কেন্দ্র ১৭ টি

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : কালীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম)। এ উপলক্ষে সম্প্রতি কালীগঞ্জ পৌরসভার খসড়া ভোটার সংখ্যা ও ভোট কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ করেছে গাজীপুর জেলা নির্বাচন।

গত ২৩ ডিসেম্বর গাজীপুর জেলা নির্বাচন অফিসার কাজী মোঃ ইস্তাফিজুল হক আকন্দ স্বাক্ষরিত খসড়া তালিকা অনুযায়ী কালীগঞ্জ পৌরসভায় মোট ভোটার রয়েছে ৩৯ হাজার ৮৩৫ জন। পুরুষ ভোটার ২০ হাজার ১৩৯ জন ও নারী ভোটার ১৯ হাজার ৬৯৬ জন। ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা মোট ১৭ টি এবং ভোট কক্ষের সংখ্যা ১০৬ টি। মোট নয়টি সাধারণ ওয়ার্ড এবং তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ড রয়েছে।

খসড়া তালিকা অনুযায়ী ১ নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ হাজার ৭৬২ জন। ভোট কেন্দ্র ২ টি। দুর্বাটি এম.ইউ কামিল মাদ্রাসার ফ্যাসিলিটিস ভবন এবং একাডেমিক ভবন।

২ নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ২ হাজার ১৫৮ জন। ভোট কেন্দ্র ১ টি। সরকারী কালীগঞ্জ শ্রমিক কলেজ।

৩ নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ হাজার ৬১২ জন। ভোট কেন্দ্র ২ টি। মসলিন কটন মিলস উচ্চ বিদ্যালয়ের পাকা ভবন এবং টিনসেড ভবন।

৪ নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ হাজার ৭০৯ জন। ভোট কেন্দ্র ২ টি। কালীগঞ্জ আরআরএন পাইলট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন ভবন এবং পুরাতন ভবন।

৫ নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৬ হাজার ৭০ জন। ভোট কেন্দ্র ২ টি। বালীগাঁও মডেল সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয় এবং বালীগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়।

৬ নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৫ হাজার ১২০ জন। ভোট কেন্দ্র ২ টি। চৌড়া নয়াবাড়ী সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন এবং পুরাতন ভবন।

৭ নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ হাজার ৭১৩ জন। ভোট কেন্দ্র ২ টি। উত্তরগাঁও সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন এবং পুরাতন ভবন।

৮ নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ হাজার ৬৫৭ জন। ভোট কেন্দ্র ২ টি। মূলগাঁও সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন এবং পুরাতন ভবন।

৯ নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৫ হাজার ৩৫ জন। ভোট কেন্দ্র ২ টি। মূলগাঁও ২ নং সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয় এবং দেওপাড়া মেহের আফরোজ চুমকি সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়।

গত ১৯ জানুয়ারি (মঙ্গলবার) বিকেলে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) জ্যেষ্ঠ সচিব মো. আলমগীর।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি, প্রার্থিতা বাছাই ৪ ফেব্রুয়ারি, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ১১ ফেব্রুয়ারি এবং প্রতীক বরাদ্দ ১২ ফেব্রুয়ারি।

২৮ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোট নেওয়া হবে। তবে সাধারণ ছুটি থাকবে না।

কালীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন গাজীপুর জেলা নির্বাচন অফিসার কাজী মোঃ ইস্তাফিজুল হক আকন্দ।

উল্লেখ্য : ”২০১৩ সালের ২০ জুন অনুষ্ঠিত কালীগঞ্জ পৌরসভার প্রথম নির্বাচনে প্রথমে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোট নেওয়ার কথা থাকলেও পরে ব্যালট পেপার ও বাক্সের মাধ্যমে ভোট নেওয়া হয়। ওই নির্বাচনে শতকরা প্রায় ৮৫ ভাগ ভোটার তাঁদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছিল।”

জানা যায়, ২০১০ সালের ১ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে কালীগঞ্জ পৌরসভার কার্যক্রম শুরু হয়।

এরপর ২০১৩ সালের ২০ জুন কালীগঞ্জ পৌরসভার প্রথম নির্বাচন সম্পন্ন হয়। ওই নির্বাচনে মেয়র পদে দুজন, নয়টি সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৫২ জন ও তিনজন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। সে সময় পৌরসভার মোট ভোটারসংখ্যা ছিলো ৩০ হাজার ৪৯৬ জন। তাঁদের মধ্যে পুরুষ ১৫ হাজার ৪০১ জন ও নারী ১৫ হাজার ৯৫ জন।

পৌরসভার নয়টি ওয়ার্ডের ১৫টি কেন্দ্রের ৮০টি বুথে ভোট নেওয়া হয়েছিল।

কালীগঞ্জ পৌরসভার প্রথম নির্বাচনে মেয়র পদে জয়ী হয়েছিলো বিএনপি-সমর্থিত প্রার্থী লুৎফর রহমান। তিনি চশমা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে ১৬ হাজার ২৪৪ ভোট পেয়েছিলো। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ-সমর্থিত আমজাদ হোসেন আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছিলো আট হাজার ৪০৬ ভোট।

 

এ সংক্রান্ত আরো জানতে…………..

কালীগঞ্জ পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন এস এম রবীন হোসেন

কালীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন ২৮ ফেব্রুয়ারি: ভোট ইভিএমে, থাকবে না সাধারণ ছুটি

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close