গাজীপুর

টঙ্গীতে দুই যুবক ও এক নারীর লাশ উদ্ধার, ধারণা আত্মহত্যা

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : টঙ্গীতে তিনটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, তাঁরা আত্মহত্যা করেছেন।

মঙ্গলবার রাতের বিভিন্ন সময় টঙ্গীর সুরতরঙ্গ রোড, খরতৈল ও গুশুলিয়া এলাকায় এসব ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে দুজন পুরুষ ও একজন নারী।

সুরতরঙ্গ রোড এলাকায় মৃত ব্যক্তির নাম ছায়েদুল হক (৩২)। তাঁর গ্রামের বাড়ি ফেনী জেলায়। খরতৈল এলাকায় মৃত ব্যক্তির নাম রফিকুল ইসলাম (২৭)। তাঁর গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনা জেলায়। আর গুশুলিয়া এলাকায় মৃত নারীর নাম রহিমা আক্তার (২৬)।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ছায়েদুল তাঁর স্ত্রীসহ সুরতরঙ্গ রোডের আবদুস সালামের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। তিনি পেশায় বাবুর্চি। এর মধ্যে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় স্ত্রী নূপুরের সঙ্গে তাঁর ঝগড়া হয়। এ সময় বাড়ির মালিক ও আশপাশের লোকজন গিয়ে তাঁদের ঝগড়া সমাধান করে চলে যান। এরপর দিবাগত রাত দুইটার দিকে ছায়েদুলের স্ত্রী নূপুর আবারও বাড়ির মালিককে ডেকে আনেন। পরবর্তী সময়ে তাঁরা ঘরের ভেতর ফ্যানের সঙ্গে ছায়েদুলের লাশ ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। খবর দিলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

রফিকুল ইসলাম ভাড়া থাকতেন খরতৈল এলাকার ভিয়েলাটেক্স পোশাক কারখানার পাশের একটি বাড়িতে। তিনি ও তাঁর স্ত্রী দুজনেই চাকরি করতেন পোশাক কারখানায়। এর মধ্যে চাকরি চলে যাওয়ায় কিছুদিন ধরে বাসাতেই ছিলেন রফিকুল। গতকাল রাত সোয়া ১০টার দিকে কাজ শেষ করে বাসায় ফেরেন তাঁর স্ত্রী খাদিজা বেগম। এ সময় ঘরের দরজা বন্ধ দেখতে পান তিনি। পরে জানালা দিয়ে ফ্যানের সঙ্গে রফিকুলকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখেন। পুলিশে খবর দিলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

এদিকে রহিমার লাশটি উদ্ধার করা হয় গুশুলিয়া এলাকা থেকে। তিনি সেখানে তাঁর বাবার বাড়িতে ছিলেন। মঙ্গলবার রাতে মেয়েকে (৫) নিয়ে এক ঘরে ঘুমাতে যান রহিমা। পরে আজ বুধবার সকালে রহিমাকে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলতে দেখেন স্বজনেরা। পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

ছায়েদুল ও রফিকুলের লাশ উদ্ধার করে টঙ্গী পশ্চিম থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. কায়সার হাসান। তিনি বলেন, ছায়েদুল ও রফিকুল দুজনেই রশি দিয়ে ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলছিলেন। পারিবারিক কলহের জেরে তাঁরা আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

রহিমার লাশ উদ্ধার করে একই থানার এসআই মো. হাসান। তিনি বলেন, রহিমার বিষয়টি রহস্যজনক। তিনি মঙ্গলবার রাতে কোনো একজনের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা বলার একপর্যায়ে রাগারাগি করেছেন বলে শোনা যায়। সকালে তাঁর ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান স্বজনেরা।

 

সূত্র: প্রথম আলো

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close