আলোচিতরাজনীতি

আওয়ামী লীগের কমিটিতে থাকার ৫ যোগ্যতা

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : করোনার মধ্যেও আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। দলীয় কার্যালয়গুলোতে এখন নেতা-কর্মীদের ভিড়। নেতা-কর্মীরা দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের বাসায় যাচ্ছেন, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন যে, অনিষ্পন্ন কমিটিগুলোর ব্যাপারে চূড়ান্ত তালিকা তার কাছে ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে দিতে হবে। এই তালিকা দেওয়াটাই শেষ ধাপ নয়, বরং কমিটি করার ক্ষেত্রে এটা শুরুর প্রক্রিয়া মাত্র। তালিকা থেকে আওয়ামী লীগ সভাপতি নিজে যাচাই বাছাই করবেন। তারপরই চূড়ান্ত কমিটি ঘোষণা করা হবে। এবার আওয়ামী লীগে চার ধরণের কমিটি হবে।

১. কেন্দ্রীয় কমিটির যে শূন্য পদগুলো আছে, সেখানে নতুন কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হবে। দুজন প্রেসিডিয়াম সদস্য মারা গেছেন, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদকের পদ খালি আছে। এই পদগুলোতে আওয়ামী লীগ সভাপতি সরাসরি তার মনোনীত ব্যক্তিদের দায়িত্ব দেবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

২. আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনগুলোর কমিটি চূড়ান্ত করা হবে। এসব কমিটির তালিকা এখন দেওয়ার জন্যে কাজ চলছে এবং অঙ্গসহযোগী সংগঠনের কিছু কিছু তালিকা ইতিমধ্যে দিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

৩. জেলা পর্যায়ের কমিটি নিয়েও এখন ভাবছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। এসব কমিটি চূড়ান্ত করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন কয়েকজন নেতা।

৪. আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর নেতৃত্বে যে উপকমিটিগুলো আছে সেখানেও এবার নতুন করে নিয়োগ দেওয়া হবে এবং পুনর্গঠন করা হবে। এসব কমিটিতে ৩৫ জনের বেশি স্থান দেওয়া যাবে না। সম্পাদকরা চাইলেই নিজেদের ইচ্ছামতো কাউকে উপকমিটিতে জায়গা দিতে পারবেন না।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ইতিমধ্যেই দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের এবং সম্পাদক মণ্ডলীর সঙ্গে বৈঠকে সুস্পষ্ট গাইডলাইন দিয়েছেন যে এই কমিটিগুলোতে কারা স্থান পাবেন। সেই বিবেচনা থেকেই এই কমিটিগুলোতে কাউকে স্থান দেওয়ার ক্ষেত্রে পাঁচটি যোগ্যতা নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রথমত; ২০০৮ এর আগে থেকে আওয়ামী লীগ করতে হবে

যারা কমিটিতে স্থান পাবেন, তাদের প্রথম যোগ্যতা নির্ধারণ করা হয়েছে যে, ২০০৮ এর আগে তাদেরকে আওয়ামী লীগ কিংবা আওয়ামী লীগের কোন অঙ্গসহযোগী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত থাকতে হবে। ২০০৮ এর পরে যারা আওয়ামী লীগের কোন অঙ্গসহযোগী সংগঠন বা আওয়ামী লীগে পদ নিয়েছেন তাদেরকে কোন কমিটিতে পারতপক্ষে রাখা হবে না। তবে সেক্ষেত্রে যদি বিশেষ বিবেচনা করা হয় তবে তা করবেন সভাপতি শেখ হাসিনা।

দ্বিতীয়ত; প্রাক্তন ছাত্রলীগ নেতাদের প্রাধান্য দেওয়া হবে

আগে যারা ছাত্রলীগ করতেন তারা কেন্দ্রীয় কমিটিতে থাকুক, জেলা কমিটিতে থাকুক, উপজেলা কমিটিতে থাকুক না কেন তাদেরকে জেলা কমিটি, উপকমিটি এবং অঙ্গসহযোগী সংগঠনের কমিটিতে প্রাধান্য দেওয়া হবে। যারা এখন কোথাও নেই তাদেরকেই এই অঙ্গসহযোগী এবং আওয়ামী লীগের উপকমিটিগুলোতে প্রাধান্য দেওয়া হবে। আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেছেন, উপকমিটি করাই হবে মূলত প্রাক্তন ছাত্রলীগ নেতাদের জন্যে। যেসব নেতারা বিভিন্ন সময়ে মেধার স্বাক্ষর রেখেছেন, এখন তারা কেন্দ্রীয় কমিটিতে থাকার যোগ্যতা রাখেন, কিন্তু নানা কারণে তাদেরকে রাখা যাচ্ছে না। এ ধরনের সাবেক ছাত্রনেতাদের এবার উপকমিটিতে দেখা যাবে।

তৃতীয়ত; যাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি-চাঁদাবাজি-টেন্ডারবাজির অভিযোগ নেই

যদি কারো বিরুদ্ধে দুর্নীতি-চাঁদাবাজি-টেন্ডারবাজির কোনো অভিযোগ বা মামলা থাকে তাহলে তারা কমিটিতে থাকার যোগ্যতা হারাবেন বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র।

চতুর্থত; মাদকের সঙ্গে জড়িতদের স্থান হবে না

মাদকাসক্ত, মাদকের সঙ্গে জড়িত বা মাদক কর্মকাণ্ডে অভিযুক্ত, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের করা মাদকসেবী এবং মাদক ব্যবসায়ীর তালিকায় নাম থাকলে সে কোনভাবেই আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গসহযোগী সংগঠনগুলোর কোনো কমিটি বা উপকমিটিতে থাকতে পারবে না।

পঞ্চমত; ফৌজদারি মামলার ইতিহাস

কমিটিতে যাদের জায়গা দেওয়া হবে তারা কোনো ফৌজদারি মামলায় জড়িত কিনা, তা দেখা হবে। কারও নামে ফৌজদারি মামলা থাকলে বা দণ্ডিত হয়ে যদি জামিনে মুক্তি পায় বা দন্ড শেষ হওয়ার পাঁচ বছর অতিক্রান্ত হয়নি- এমন কেউ কমিটিতে থাকতে পারবে না।

অর্থাৎ এখন থেকে আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গসহযোগী সংগঠনগুলোর কোনো কমিটি বা উপকমিটি গঠনের ক্ষেত্রে সাহেদ-পাপিয়াদের মতো কোন অনুপ্রবেশকারী যেন না ঢোকে সেজন্য একটি সুনির্দিষ্ট নীতিমালা তৈরির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগের শীর্ষ পাঁচ নেতা এই নীতিমালা চূড়ান্ত করছেন। যতক্ষণ পর্যন্ত এই নীতিমালা চূড়ান্ত না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সভাপতির গাইডলাইন অনুযায়ী এই পাঁচটি শর্তের ভিত্তিতে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন কমিটি চূড়ান্ত করা হবে বলে জানা গেছে।

 

সূত্র: বাংলা ইনসাইডার

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close