গাজীপুর

কোভিড-১৯ : গাজীপুরে ৪ ঘন্টার ব্যবধানে হাসপাতালে ৩ রোগীর মৃত্যু!

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতল এবং টঙ্গীর শহীদ আহসানউল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালে ৪ ঘন্টার ব্যবধানে ৩ রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার (১২ জুন) সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত এই ৪ ঘন্টার ব্যবধানে ওই ৩ রোগীর মৃত্যু হয়।

মৃত তিন জনের মধ্যে কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে শুক্রবার সকাল ১০টা সময় করোনা শনাক্ত এক রোগী (৭০) ও করোনা উপসর্গ নিয়ে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) দুপুর পৌণে ২ টার সময় অপর রোগীর (৫৫) মৃত্যু হয়। অপরদিকে টঙ্গীর শহীদ আহসানউল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে সকাল ১১টার দিকে এক রোগীর (৭০) মারা গেছে।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার (১২ জুন) সকাল ১০টা কোভিড-১৯ শনাক্ত এক বৃদ্ধ (৭০) মারা গেছেন। তিনি ৯ জুন সন্ধ্যা ৬ টার দিকে হাসপাতালের কোভিড-১৯ ইউনিটে ভর্তি হয়েছিলেন। মৃত বৃদ্ধ টঙ্গীর পূর্ব আরিচপুর মন্নু নগর এলাকার বাসিন্দা। অপরদিকে করোনার উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে চিকিৎসাধীন টঙ্গীর আউচপাড়া কলেজ গেইট এলাকার এক বাসিন্দা (৫৫) মারা গেছেন। তিনি ১১ জুন বিকেল পৌণে ৫ টার দিকে আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি হয়েছিলেন। মৃত ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ও ফোকাল পারসন ডা. তপন কান্তি সরকার, ‘শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক বৃদ্ধ (৭০) মারা গেছেন। এছাড়াও করোনা উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন আরেক রোগী (৫৫) দুপুর পৌণে ২ টার সময় মারা গেছেন। উপসর্গ নিয়ে মৃত ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে’। শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৮ রোগীর মৃত্যু হয়েছে’।

তিনি আরো বলেন, ’হাসপাতালে বর্তমানে কোভিড-১৯ শনাক্ত ৫০ জন রোগী এবং করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে আইসোলেশন ইউনিটে আরও ৩৪ জন রোগী ভর্তি আছেন’।

টঙ্গীর শহীদ আহসানউল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার পারভেজ আলম বলেন, ‘উত্তরার ফায়েদাবাদ এলাকার এক বাসিন্দা (৬৫) করোনার উপসর্গ নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে এ হাসপাতালে ভর্তি হন। শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে তিনি শ্বাসকষ্ট নিয়ে মারা যান। মৃত ব্যক্তির লাশ হাসপাতালে রয়েছে। তাঁর স্বজনদের খরর দেওয়া হয়েছে তাঁরা এখনো হাসপাতালে আসে নি’।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close