আলোচিতজাতীয়রাজনীতি

যার-তার সাথে ছবি না তোলার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : পাপিয়া কেলেঙ্কারিতে এখন আওয়ামী লীগের মধ্যে নানা রকম আলোচনা চলছে। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের অনেক বড় বড় নেতার সঙ্গে পাপিয়ার সেলফি-ছবি দলটিকে বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে ফেলছে। যদিও দলের অধিকাংশ সিনিয়র নেতারা, যাদের সঙ্গে পাপিয়ার ছবি উঠেছে। তাঁরা বলেছে যে, তাঁরা এই পাপিয়াকে চিনতোই না। কেউ যদি তাঁদের সাথে এসে ছবি তোলে তাহলে তাঁরা কি করবেন?

দেখা গেছে যে, রাষ্ট্রপতি থেকে শুরু করে আওয়ামী লীগের অনেক গুরুত্বপূর্ন নেতার সঙ্গে পাপিয়ার ছবি। প্রশ্ন উঠেছে যে পাপিয়া এতদূর গেল কিভাবে? কিভাবে তাঁদের কাছে পৌঁছাল? উত্তরে অবশ্য আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলেছেন যে, যেহেতু পাপিয়া নগর নরসিংদী বাংলাদেশ মহিলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিল, সেহেতু কোন নেতার কাছে যাওয়া তাঁর জন্য তেমন কোন বড় ব্যাপার ছিলনা। কিন্তু দেখা গেছে যে, নেতারা এখন যতই বলুক যে তাঁরা তাকে চেনেননা কিংবা জানতেন না, শুধুমাত্র পাপিয়ার পদবীর কারণেই তাঁরা ছবি তুলেছেন। কিন্তু সারা বাংলাদেশে ৬৪টি জেলা রয়েছে। কয়টি জেলার সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে এরকম ছবি তুলতে পারে? এর উত্তরে আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন যে, যেহেতু পাপিয়ার উদ্দেশ্য ছিল যে, রাজনীতিকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা এবং রাজনৈতিক পরিচয়কে ব্যবহার সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের উপর প্রভাব বিস্তার করা। সে কারনেই তিনি উদ্দেশ্য প্রণেদিতভাবে ছবি তুলেছিল। আর এরকমভাবে যদি কেউ সুনির্দিষ্টভাবে স্বার্থ হাসিলের জন্য পরিকল্পনা করে ছবি তোলে তাহলে কার কি করার আছে?

কিন্তু আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারক মহলে বিষয়টি আলোচনা হয়েছে। আওয়ামী লীগের অনেক গুরুত্বপূর্ণ নেতাই মেয়েদের সঙ্গে সখ্যতা করতে পছন্দ করে, ফেসবুকে তাঁদের একাধিক নারীবন্ধু রয়েছে এবং পুরুষ কর্মীরা আসলে যতটুকু ভাবগাম্ভীর্য রাখেন, নারী কর্মীরা আসলে ততটুকুই উদারতা এবং হাস্যরসে থাকেন। এটি দলের জন্য বিব্রতকর এবং সাম্প্রতিক সময়ে পাপিয়া কেলেঙ্কারির পর আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা এই ব্যাপারে নড়েচড়ে বসেছে। একজন নারী কর্মী আসলে তাকে ঠিকভাবে না চিনেই তাঁর সঙ্গে ছবি তোলা উচিৎ কি উচিৎ না এই বিতর্কটি এখন আওয়ামী লীগে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, প্রধানমন্ত্রী নিজেই যারতার সাথে ছবি না তুলতে পরামর্শ দিয়েছেন। যাদেরকে চিনেন না, তাঁদের সাথে ছবি তুলে নিজের ইমেজ এবং ব্যক্তিত্ব নষ্ট না করাটাই উত্তম বলে প্রধানমন্ত্রী দলের কয়েকজন সিনিয়র নেতাকে পরামর্শ দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

সাম্প্রতিক সময়ে দেখা গেছে, আওয়ামী লীগের যাদের যাদের সঙ্গে ছবি তুলেছেন, তাঁদের অনেকেই পাপিয়াকে চেনেনই না, কখনো দেখা হয়েছে কিনা তা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে। তাহলে রাজনৈতিক অঙ্গনে যাকে আপনি চেনেন না, যাকে আপনি আবার দেখলে মনেও করতে পারবেন না, তাঁর সাথে ছবি তোলা কেন? রাজনীতিতে এখন অনেক দুর্ব্রিতায়ন, অনেক সুযোগসন্ধানী, অনেক বহিরাগতদের অনুপ্রবেশ ঘটেছে। তাই এইসময় সবাইকে অনেক সতর্ক থাকা উচিৎ বলে মনে করেন দলের নীতিনির্ধারকরা। বিশেষ করে অপরিচিত যারা দলে উড়ে এসে জুড়ে বসেছেন, তাঁরাই ছবি তোলার ব্যাপারে আগ্রহী, আওয়ামী লীগের যারা পোড় খাওয়া, ত্যাগী, দুর্দিনের কর্মী- তাঁরা কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে ছবি বা সেলফি তোলায় আগ্রহী নয়। এই ব্যাপারে সতর্কতা আসছে কেন্দ্রীয় নেতাদের থেকে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, খুব শীগ্রই আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে, সেই বৈঠকে আরো সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা আসতে পারে বলে জানা গেছে। বিশেষ করে, কয়েকজন নেতার নারী কর্মীদের ব্যাপারে ‘অতি উদারতা’ তাঁদেরকে বিপদে ফেলতে পারে। এবং ইতিমধ্যে তাদেরকে নিয়ে নানারকম হাস্যরস শুরু হয়েছে। এই বিষয়টি মাথায় রেখে, শুধু নারী নয়, যেকোন নারী-পুরুষ যেকোন কর্মীদের সঙ্গে ছবি তোলার আগে যাচাইবাছাই করা উচিৎ বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের পোড় খাওয়া নেতারা। আর এই ব্যাপারে কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে নির্দেশনা না আসলেও বিষয়টি নিয়ে যে কেন্দ্রীয় কমিটিতে আলোচনা হবে- সেটা নিশ্চিত।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close