আন্তর্জাতিক

আরব আমিরাত ও ইসরায়েলেও হামলার হুমকি ইরানের

গাজীপুর কণ্ঠ, আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইরানের ভূমিতে হামলা হলে আরব আমিরাতের দুবাই ও ইসরায়েলের হাইফা শহরে হামলা চালানোর হুমকি দিয়েছে ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ড। নিজস্ব চ্যানেল টেলিগ্রামে সংস্থাটি বলেছে, ইরানে বোমা চালানোর ঘটনা ঘটলে তাদের প্রতিশোধমূলক হামলার তৃতীয় ধাক্কায় লক্ষ্যবস্তু থাকবে দুবাই ও হাইফা শহর। 

বুধবার সিএনএনের লাইভ আপডেটে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ইরাকে দুই মার্কিন বিমানঘাঁটিতে ইরান ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে ইরান। ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেলে বলা হয়েছে, দেশটির শীর্ষ কমান্ডার কাশেম সোলাইমানিকে হত্যার প্রতিশোধ হিসেবে এই হামলা চালানো হয়। ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পাল্টা জবাব দিলে যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরে হামলা চালানোরও হুমকি দিয়েছে ইরান।

সিএনএন জানিয়েছে, হামলার ঘটনায় এ মুহূর্তে (যুক্তরাষ্ট্র সময় মঙ্গলবার রাত) নতুন কোনো বিবৃতি দেবে না হোয়াইট হাউস। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও হামলার ব্যাপারে এখন কোনো বক্তব্য দেবেন না। এর আগে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র স্টেফানি গ্রিশাম এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘ইরাকে মার্কিন স্থাপনায় হামলা হওয়ার বিষয়টি আমরা জেনেছি। প্রেসিডেন্টকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হয়েছে। তিনি পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছেন। জাতীয় নিরাপত্তা দলের সঙ্গে পরামর্শও করছেন প্রেসিডেন্ট।’ ওই সময় হামলার ব্যাপারে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে শুরুতে জানানো হয়। তবে এখন বলা হচ্ছে, ‘আজ রাতে (স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাত) আর ক্যামেরার সামনে আসবেন না প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।’ এদিকে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলার পর ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স, পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মার্ক এসপের সহ শীর্ষ নিরাপত্তা কর্মকর্তারা হোয়াইট হাউস ছেড়ে গেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল অ্যাভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফএএ) বেসামরিক মার্কিন বিমানগুলোকে ইরাক, ইরান, পারস্য ও ওমান উপসাগরের ওপর চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

বিবিসি অনলাইনের খবরে জানানো হয়, ইরাকের যে দুটি মার্কিন বিমানঘাঁটিতে ইরান হামলা চালিয়েছে, সে দুটি হলো, আল-আসাদ ও ইরবিল। সেখানে মার্কিন সেনারা অবস্থান করছিল। প্রাথমিকভাবে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা হওয়ার তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে এখনো কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়, স্থানীয় সময় মঙ্গলবার ইরাকের ওই দুটি মার্কিন বিমানঘাঁটিতে এক ডজনেরও বেশি ‘ব্যালিস্টিক মিসাইল’ ছুড়েছে ইরান।

গত শুক্রবার ভোরে ইরাকের বাগদাদে মার্কিন ড্রোন হামলায় ইরানি জেনারেল কাশেম সোলাইমানি নিহত হয়েছেন। সোলাইমানি হত্যার ঘটনায় ইরান চরম প্রতিশোধ নেওয়ার ঘোষণা দেয়। এর প্রতিক্রিয়ায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পাল্টা হুমকি দিয়ে বলেন, ইরান হামলা চালালে দেশটির ৫২টি স্থাপনায় খুব দ্রুত ও শক্তিশালী হামলা চালানোর জন্য মার্কিন সেনারা প্রস্তুত।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close