আলোচিতরাজনীতি

প্রথম বৈঠকেই শাজাহান-নানকের ঝগড়া, ধমক খেলেন রাজ্জাক?

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি ঘোষণার পর প্রথম বৈঠকেই তর্কে জড়ালেন দুই প্রেসিডিয়াম সদস্য শাজাহান খান ও জাহাঙ্গীর কবির নানক। অন্যদিকে কমিটির শূন্য পদে একজনের জন্য তদবির করে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধমক খান প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক।

জানা গেছে, মঙ্গলবার রাতে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার শুরুতেই আওয়ামী লীগ সভাপতিকে অভিনন্দন জানান নেতারা। এ সময় প্রধানমন্ত্রী দলের প্রেসিডিয়ামে নতুন আসা তিন নেতা শাজাহান খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমানকে তাদের কী কারণে প্রেসিডিয়ামে আনা হয়েছে, তাদের রাজনৈতিক অতীত বর্ণনা করতে বলেন। এ সময় প্রায় ৪০ মিনিট বক্তৃতা করেন নানক। স্কুল ছাত্রলীগের শুরু থেকে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, বিরোধী দলে থাকা অবস্থায় আন্দোলন সংগ্রামের কথা বলেন। একইভাবে বর্ণনা করেন আবদুর রহমান। শাজাহান খানও কিছু কথা বলেন। এরপর কমিটি গঠন নিয়ে শুরু হয় আলোচনা। কমিটিতে সাবেক শ্রম ও জনশক্তি সম্পাদক হাবিবুর রহমানকে রাখার বিষয়ে মতামত চাওয়া হলে শাজাহান খান বলেন, হাবিবুর রহমান চাঁদাবাজ লোক। তাকে না রাখাই ভালো। এ সময় শাজাহান খানকে চ্যালেঞ্জ করেন জাহাঙ্গীর কবির নানক। তিনি বলেন, হাবিবুর রহমান কোথায় চাঁদাবাজি করলেন? তিনি যদি চাঁদাবাজ হন, তাহলে শ্রমিক রাজনীতির সঙ্গে যারা যুক্ত সবাই চাঁদাবাজ। আপনি বড় চাঁদাবাজ। আপনি পরিবহন নিয়ন্ত্রণ করছেন। এরপর দুজনকেই প্রধানমন্ত্রী থামিয়ে দেন। ড. আবদুর রাজ্জাক একজনের নাম কমিটিতে রাখতে দলীয় সভাপতির দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী তাকে ধমক দেন। বলেন, এসব তদবির নিয়ে আসবেন না।

সভা শেষে গণভবনের মূল ফটকের সামনে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, বৈঠকে কমিটি গঠনের দায়িত্ব দলীয় সভাপতিকে দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার কমিটি ঘোষণা করা হবে। তবে বাদবাকি কমিটিতে কারা আসছেন এ বিষয়ে সরাসরি কিছুই বলেননি তিনি। জানতে চাইলে বলেন, কিছু নতুন নেতা কেন্দ্রীয় কমিটিতে আসার সম্ভাবনা আছে। আংশিক কমিটি থেকে বাদ পড়া মন্ত্রীদের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে রাখা হচ্ছে কিনা- এ বিষয়ে তিনি বলেন, মন্ত্রীদের কমিটিতে রাখা না রাখা নিয়ে সভায় আলোচনা হয়েছে। তবে সবাই এ বিষয়টির সিদ্ধান্তের জন্য নেত্রীর ওপর ছেড়ে দিয়েছেন।

প্রেসিডিয়ামের বৈঠকে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ছাড়াও সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, ইঞ্জি. মোশাররফ হোসেন, ড. আবদুর রাজ্জাক, ফারুক খান, সাহারা খাতুন, কাজী জাফর উল্লাহ, রমেশ চন্দ্র সেন, আবদুল মান্নান খান, পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য, আবদুল মতিন খসরু, নুরুল ইসলাম নাহিদ, শাজাহান খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়াও উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত শনিবার আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনের কাউন্সিল অধিবেশনে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির ৮১ সদস্যের মধ্যে ৪২টি পদে মনোনীতদের নাম ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। ৩৯ পদে নেতা মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। এই পদগুলোতে কাদের রাখা হবে তা নিয়ে চলছে নানা আলোচনা। গতকাল আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের বৈঠকে দলের সভাপতি এ বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

 

সূত্র: বাংলা ইনসাইডার

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close