আন্তর্জাতিক

গুজরাটে এবার মুসলিম পুলিশ কনস্টেবলকে হত্যার চেষ্টা!

গাজীপুর কণ্ঠ, আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আরিফ ইসমাইল শেখ। ভারতের আইন-শৃঙ্ক্ষলা রক্ষাকারী বাহিনীর পুলিশ কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত। উগ্রপন্থী হিন্দুদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি এ মুসলিম পুলিশ কনস্টবল। হামলাকারীরা তার দাড়ি ধরে টানাটানি করে। এক পর্যায়ে তাকে গলাটিপে হত্যার চেষ্টাও করে বলে জানান এ পুলিশ কনস্টেবল।

ভারতের গুজরাটের ভাদোদারা শহরে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় কট্টরপন্থীদের হাতে বর্বর হামলার শিকার হয়েছেন ৪৪ বছর বয়সের আরিফুল ইসলাম শখ নামে এক মুসলিম পুলিশ কনস্টেবল।

ভারতীয় গণমাধ্যম নিউজক্লিকের তথ্য মতে, ‘ভাদোদারা সিটির জোন-৩ এর ডিসিপি সঞ্জয় খারাত জানান,‘মুসলিম কনস্টেবলের ওপর উগ্রবাদী সন্ত্রাসীদের হামলার ঘটনায় এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। আমরা বিষয়টি জানার পরপরই তদন্ত শুরু করেছি। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৩ উগ্রপন্থীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

হামলার শিকার পুলিশ কনস্টেবল আরিফ ইসমাইল শেখ জানান, গত ২৩ আগস্ট শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে তিনি বাড়ি ফিরছিলেন। পথে কয়েকজন উগ্রপন্থী তাকে গালাগালি শুরু করে। এরপর তারা তাকে মারধর করে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইপিসির ৩২৩, ১৪৩, ১৪৭, ৫০৪ এবং ৫০৬ (২) ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ‘প্রতাপনগর সদর দফতরে আমার ডিউটি শেষ করে যখন আমি বাড়ি ফিরে যাচ্ছিলাম, তখন শিব শক্তি মহল্লার পাশের রাস্তা পার হয়ে অজ্ঞাত এক যুবক আমার দিকে হাত দুলিয়েছিল। আমি তাকে শান্তভাবে রাস্তাটি অতিক্রম করতে বলার পরে, তিনি আমার দিকে এসে আমার ধর্মকে টার্গেট করে কথা বলতে শুরু করলেন।’

প্রথমে একজন হামলাকাারী ‘ওহ, বোদায়া!’ এবং ‘ওহ, মুসলিম!’ মন্তব্য করতে থাকে। এরপর একটি পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন নিকটবর্তী জনবসতি থেকে পাঁচ থেকে সাত জন তার সঙ্গে যোগ দেয়। তারপর তারা সবাই মিলে আমাকে মারধর করতে থাকে। তারা আমার দাড়ি ধরে টানাটানি শুরু করে। আমার মুখে আঘাত করে এবং তারা আমাকে গলা টিপে হত্যা করার চেষ্টা করে।

হামলাকারীরা এসময় নিজেদের মধ্যে বলাবলি করতে থাকে যে, ‘আস! আজ সবাই মিলে এই ব্যক্তিকে শেষ করে (হত্যা) ফেলি, মুসলমানরা তাদের সীমা ভুলে গেছে…,’ এসব কথা বলতে থাকে। অতঃপর হামলাকারীরা তার পকেটে থাকা মানিব্যাগটিও নিয়ে যায়।

পুলিশ সদস্য হওয়ার পরও থানা পুলিশ তার অভিযোগ গ্রহণ করতে অস্বীকার করে। অভিযোগ গ্রহণ করার পর সাধারণ সহজ অভিযোগ হিসেবে তা দেখানোর চেষ্টা করে। যদিও এটি ছিল সাম্প্রদায়িক আক্রমণ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক সামাজিক কর্মীর মতে, ‘সাম্প্রদায়িক হামলা ভাদোদারায় যদিও এটা প্রথম নয়, এর আগেও ভাদোদারা সংখ্যালঘু মুসলিমদের ওপর এমন হামলার ঘটনা ঘটেছ।

তাই বলে একজন মুসলিম পুলিশ অফিসারের উপর হামলার ঘটনা বিরল। এমন ঘটনা ঘটতে থাকলে সাধারণ মানুষ রাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা ব্যবস্থার প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলবে।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close