আলোচিত

যে কারণে অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে বিটিআরসি

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা- বিটিআরসি দেশের ৫৮টি অনলাইন পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে।

রোববার বিকালে দেশের ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) এবং ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান (আইএসপি)-কে বিটিআরসি লিখিতভাবে এই নির্দেশনা দিয়েছে বলে জানান ইন্টারনেট সেবা সংস্থাগুলোর সংগঠন আইএসপির মহাসচিব ইমদাদুল হক।

যেসব পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ এসেছে সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল: প্রিয় ডটকম, রাইজিংবিডিডটকম, পরিবর্তনডটকম, শীর্ষনিউজ২৪ডটকম, ঢাকাটাইমস২৪ডটকম ইত্যাদি।

“রাষ্ট্রবিরোধী সেইসঙ্গে অশ্লীল খবর প্রচারের কারণে পোর্টালগুলোর বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে,”  এমনটাই জানান বিটিআরসি চেয়ারম্যান জহুরুল হক।

তবে কোন পোর্টালের বিরুদ্ধে ঠিক কী অভিযোগ এসেছে – সেটা তিনি সুনির্দিষ্টভাবে কিছুই বলেননি।

কী কারণে পোর্টালগুলোর বিরুদ্ধে এমন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে – সে ব্যাপারে আইএসপির মহাসচিব ইমদাদুল হকও স্পষ্ট করে কিছু জানাতে পারেনি।

তিনি বলেন, “আমাদের কাছে কেবল নির্দেশনা এসেছে, সেখানে কোন কারণ উল্লেখ করা হয়নি।”

তিনি আরোও জানান, বিটিআরসির পক্ষ থেকে রোববার বিকেলে তাদের কাছে ই-মেইলের মাধ্যমে ওই ৫৮টি সাইট বন্ধের নির্দেশ আসে।

তারপর থেকে তারা সেই সিদ্ধান্ত কার্যকরের উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

তবে সোমবার দুপুর পর্যন্ত ওই তালিকার বেশিরভাগ পোর্টাল সক্রিয় অবস্থায় দেখা যায়।

এ ব্যাপারে তিনি জানান, “এতোগুলো পোর্টাল বন্ধ করা টেকনিক্যালভাবে জটিল। তাই এই কাজ কিছুটা সময় সাপেক্ষ।”

তবে সোমবার রাতের মধ্যেই তালিকাভুক্ত সব পোর্টাল পর্যায়ক্রমে বন্ধ করা হবে বলে জানান তিনি।

অনলাইন পোর্টাল বন্ধ করা হয় কেন?
সাধারণত কোন সংবাদমাধ্যম যদি রাষ্ট্রবিরোধী কিছু প্রচার করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে এ ধরনের উদ্যোগ নেয়া হয়।

“সেই সিদ্ধান্ত দেশের জাতীয় টেলিযোগাযোগ পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র-এনটিএমসি, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সমন্বিতভাবে নিয়ে থাকে,” জানান ইমদাদুল হক।

তিনি বলেন, “এসব সাইট বন্ধের ক্ষেত্রে বিটিআরসি সরাসরি কোন নির্দেশনা দেয়না। সিদ্ধান্ত মূলত এনটিএমসি নিয়ে থাকে। যেখানে আর্মি পুলিশ যৌথভাবে পোর্টালগুলো পর্যবেক্ষণ করে।”

পোর্টালের সম্পাদকরা ‘হতাশ’
এ ঘটনায় তীব্র হতাশা প্রকাশ করেছেন প্রিয় ডটকমের সম্পাদক জাকারিয়া স্বপন।

তিনি জানান, “এই পোর্টাল বন্ধের বিষয়ে তাদের আনুষ্ঠানিকভাবে কিছুই জানানো হয়নি।”

তিনি বলেন, “আমি সকালে এসে দেখি পোর্টাল চলছে না, বন্ধ হয়ে গেছে। এমনটা কেন হল, আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ কী – কিছুই জানিনা।”

“আমরা হতাশ, হেল্পলেস।”

এ ঘটনাকে “সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার ওপর বড় বাঁধা” বলে মনে করছেন তিনি।

এছাড়া এই প্রতিষ্ঠানগুলোতে যে জনবল কাজ করছে তাদের ভবিষ্যত নিয়েও আশঙ্কা প্রকাশ করেন জাকারিয়া স্বপন।

এর আগেও বিভিন্ন সময়ে কোনো কারণ ব্যাখ্যা না করেই বিভিন্ন ওয়েবসাইট বন্ধ রাখা হয়েছে এবং প্রায় প্রতি ক্ষেত্রেই বিটিআরসি একই ধরনের কথা বলেছে।

চলতি বছরের ১৮ জুন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের লিংক আকস্মিকভাবে বন্ধের নির্দেশ দেয় বিটিআরসি। কয়েক ঘণ্টা পর তা খুলে দেওয়া হলেও বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সে সময় কোনো কারণ দেখাতে পারেননি।

জহুরুল হক সে সময় বলেছিলেন, ‘সরকারের উপর মহলের নির্দেশে’ তারা ওই পদক্ষেপ নিয়েছেন। কিন্তু তাতে বিস্ময় প্রকাশ করে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছিলেন, বিষয়টি তিনি তদন্ত করে দেখবেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close