গাজীপুর

অবৈধভাবে জমি দখল করতে গ্রামবাসীর উপর আবুল খায়ের গ্রুপের হামলা, আহত ৪০(ভিডিও সহ)

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : নদী দখলের অভিযোগের পাঁচ মাস না পেরুতেই অবৈধভাবে জমি দখল করে ভরাট করতে গিয়ে গ্রামবাসীর উপর হামলা করে ‘আবুল খায়ের গ্রুপ’ এর সশস্ত্র আনসার বাহিনী।

হামলার ঘটনায় অন্ততঃ ২৫ জন গ্রামবাসী ও ১৬ জন আনসার সদস্য আহত হয়।

ঘটনাটি ঘটে কালীগঞ্জ পৌর এলাকার বালীগাঁও গ্রামে অবস্থিত আবুল খায়ের গ্রুপের সিরামিক্স কারখানার সম্মুখে (১০ আগস্ট ২০১৮) শুক্রবার বিকেলে।

এর আগে গত মার্চ মাসে দিনে দুপুরে অবৈধ গজারী গাছের পাইলিং দিয়ে শীতলক্ষ্যা নদী দখলের অভিযোগ উঠে। পরে সরকারী সম্পদ দখল ও অপব্যবহারের অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পেয়ে প্রাথমিকভাবে তাদের কাজ বন্ধ করেন কালীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. সোহাগ হোসেন। এছাড়াও নদী দখলের কাজে ব্যবহৃত নৌকা, গজারী গাছসহ যাবতীয় ষড়ঞ্জামাধী ওই সময় জব্দ করেন।

স্থানীয় ও আহতরা জানান, গত দুই মাস যাবত বালীগাঁও মৌজার প্রায় ৪০ থেকে ৪৫ বিঘা জমি সসস্ত্র আনসার বাহিনীর পাহাড়ায় জোড়পূর্বক বালু দিয়ে ভরাট করছে আবুল খায়ের গ্রুপ কর্তৃপক্ষ। শুক্রবার বিকেলে স্থানীয়রা নিজেদের জমিতে বাঁশ দিয়ে সীমানা নির্ধারন করতে গেলে আবুল খায়ের গ্রুপের আনসার সদস্যরা গ্রামবাসীর উপর হামলা করে। এতে উভয় পক্ষের প্রায় ৪০ জনের মতো আহত হয়।

আহতদের মধ্যে রয়েছেন বালীগাঁও গ্রামের কামাল উদ্দিনের ছেলে রিয়াজ (৩০), সুলতান উদ্দিনের দুই ছেলে এবাদত (৩০) সাফায়াত (৪০), বাতেনের ছেলে বাসেত (৩৫), বজলুর দুই ছেলে মাইনুল (৩৫) মোমেন (২৫), নুরু মিয়ার ছেলে সোলাইমান (৪০), গনি মিয়ার ছেলে রেজাউল (৩২) সহ আরও ১০/১২ জন।

অপরদিকে আহত আনসার সদস্যদের মধ্যে রয়েছে আরিফুর রহমান (৪২), আব্দুস সামাদ (৩২), জাকির (৪০), আশরাফুল (৩৮), আজিজুল ইসলাম (২৬), কায়েস (৩৬), শাওন (৪০), জাহাঙ্গীর (৩৭), গুলজার (৩৫), আব্দুল খালেক (৪০), শাহেদুল (৪৪), হামিদুল ইসলাম (২৮), মোহাম্মদ ইব্রাহীম (৩৫), আব্দুল বাসেত (৫০), সিরাজ উদ্দিন (৪৮)।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক আশিষ কুমার বনিক জানান, শুক্রবার আহতাবস্থায় ১৩ জন আনসার সদস্য চিকিৎসা নিতে হাসপাতালে আসেন। এর মধ্যে শাওন ও খালেক নামের দুই জনকে ঢাকা মেডিকেল রেফার্ড করা হয় এবং আশরাফুল, জাহাঙ্গীর, শাহেদুল ও ইব্রাহীমকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। আর বাকী সাত জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। শনিবার আব্দুল বাসেত ও গিয়াস উদ্দিন হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

স্থানীয় গ্রামবাসী শাহীন ডাক জানান, জোড়পূর্বক জমি দখলের অভিযোগে গত ৩০ জুলাই ২০১৮ তারিখে আমি বাদি হয়ে কালীগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি করি। জিডি নং ১১৭১। পরবর্তীতে কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আবু বকর মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি আরও জানান, শুক্রবার বিকেলে আমি সহ স্থানীয় কয়েকজন নিজ জমিতে বাঁশ দিয়ে সীমানা প্রাচীর নির্মান করার সময় আবুল খায়ের গ্রুপের সশস্ত্র আনসার বাহিনী আমাদের উপর গুলিবর্ষনসহ লাঠিচার্য করে। এতে স্থানীয় প্রায় ২৫ জন গ্রামবাসী আহত হোন। আমরা ভয়ে আতঙ্কিত হয়ে চিকিৎসার জন্য হাসতালে না গিয়ে স্থানীয় ফার্মেসীতে চিকিৎসা গ্রহণ করি।

এছাড়াও শাহীন ডাক আরও জানান, আবুল খায়ের গ্রুপ সরকারী হালট দখল করে তাদের নিজস্ব মালামাল পরিবহনের রাস্তা হিসাবে ব্যবহার করে আসছে। গত কয়েক বছর আগে ফাহিম মার্বেল এর কাছ থেকে ফ্যাক্টরিটি ক্রয় করে আবুল খায়ের গ্রুপ। এর পর থেকেই তারা ফ্যাক্টরির সামনে থাকা স্থানীয় গ্রামবাসীর ৪০-৪৫ বিঘা আবাদী জমির উপর কু-নজর দেয়। এর মধ্যে ১৫-২০ বিঘা বিভিন্ন মাধ্যমে তারা ক্রয় করে। এবং গত দুই মাস যাবত সম্পূর্ণ জমিই বালু দিয়ে ভরাট করার কাজ শুরু করে। এ ব্যাপারে আমরা ন্যায়সঙ্গত ভাবে প্রতিবাদ করলে আবুল খায়ের গ্রুপ আমাদেরকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে আসছেন।

এ ব্যাপারে আবুল খায়ের গ্রুপের সিরামিক শাখার কালীগঞ্জ কারখানার প্রশাসন বিভাগের ব্যবস্থাপক মো. মর্তুজা মাহফুজ জানান, শুক্রবার গ্রামবাসীর অতর্কিত হামলায় আমাদের ১৪ জন আনসার সদস্য আহত হয়েছেন। এর মধ্যে দুই জনকে ঢাকা মেডিকেল হসপিটালে পাঠানো হয়েছে। এই বিষয়ে কর্তৃপক্ষ বাদী হয়ে কালিগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছি।

কালীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রহমান জানান, আবুল খায়ের গ্রুপের পক্ষে মোঃ মর্তুজা বাদী হয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে। তিনি আরও জানান, শুক্রবার বিকেলে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

ভিডিও :

 

আরো জানতে….

দিনে দুপুরে নদী দখলের অভিযোগ ‘আবুল খায়ের গ্রুপ’র বিরুদ্ধে

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close