গাজীপুর

দিনে দুপুরে নদী দখলের অভিযোগ ‘আবুল খায়ের গ্রুপ’র বিরুদ্ধে

গাজীপুর কণ্ঠ ডেস্ক : কালীগঞ্জ পৌর এলাকার বালীগাঁও গ্রামে দিনে দুপুরে অবৈধ গজারী গাছের পাইলিং দিয়ে শীতলক্ষ্যা নদী দখল করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে ‘আবুল খায়ের গ্রুপ’র বিরুদ্ধে। এতে একদিকে যেমন নদী ছোট হচ্ছে, অন্যদিকে উজার হচ্ছে পরিবেশ বান্ধব গাছ।

উপজেলা প্রশাসনের কার্যালয় থেকে মাত্র ২০০ গজ দূরত্বে নদী দখলের এমন দৃশ্য দেখে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে স্থানীয়দের মধ্যে।

এদিকে অভিযোগের পর স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে আরও বেশী রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। প্রশাসন মৌখিকভাবে কাজ বন্ধ করলেও প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে আইনগত কোন ব্যবস্থা নেয়নি।

জানা গেছে, কালীগঞ্জ উপজেলার শীতলক্ষ্যা নদী তীরবর্তী এলাকায় কল-কারখানাগুলো দীর্ঘদিন যাবৎ শীতলক্ষ্যা নদী দখলের প্রতিযোগীতায় মেতেছে। আর স্থানীয় ওই কলকারখানাগুলোর নদী দখলের প্রতিযোগীতায় ইতিমধ্যে শীতলক্ষ্যা নদী ছোট হয়ে গেছে। দিনে দিনে নষ্ট হচ্ছে শীতলক্ষ্যা নদীর পরিবেশ। স্থানীয় প্রশাসনে ঢিলে-ঢালা ব্যবস্থা গ্রহণে রোধ হচ্ছে না নদী দখল। বরং তা দিনে বন্ধ থাকলেও রাতের আধাঁরে চলে নদী দখলের প্রতিযোগীতা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শুষ্ক মৌসুম এমনিতেই নদী অনেক নিচে নেমে গেছে। আর এই শুষ্ক মৌসুমেও পৌর এলাকার বালীগাঁও গ্রামে আবুল খায়ের সিরামিক নামের কারখানাটি অবৈধ গজারী গাছের পাইলিং করে তাতে কারখানার ময়লা আবর্জনা ফেলে নদী দখল করছে। আর এ কাজে ব্যবহারের জন্য কারখানার ভেতরে সারি সারি অবৈধ গজারী গাছ স্তুপ করে রাখা হয়েছে। সরকারী সম্পদ দখল ও অপব্যবহারের অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রাথমিকভাবে তাদের কাজ বন্ধ করেন কালীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)।

এ ব্যাপারে আবুল খায়ের সিরামিক কালীগঞ্জ কারখানার প্রশাসন বিভাগের ব্যবস্থাপক মো. মর্তুজা মাহফুজ জানান, নদী দখলের কোন ঘটনা ঘটেনি। অনেক আগে নদীর পার ভাঙনের সময় পাইলিং করা হয়েছিল। কারখানার ভেতর সেই সময়ের কিছু গজারি গাছ রয়েছে।

কালীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. সোহাগ হোসেন জানান, সরকারী সম্পদ দখল ও অপব্যবহারের অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পাওয়া যায়। পরে প্রাথমিকভাবে তাদের কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এছাড়াও নদী দখল কাজে ব্যবহৃত নৌকা, গজারী গাছসহ যাবতীয় ষড়ঞ্জামাধী লিখিত নিয়ে তাদের জিম্মায় রাখা হয়েছে। সরকারী ছুটির দিন ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ না থাকার কারণে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয়নি। (০৪ মার্চ ২০১৮) রোববার বিআইডব্লিউটি, বন বিভাগ ও পরিবেশ অধিদপ্তরের সাথে নিয়ে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তিনি আরো জানান, শীতলক্ষ্যা নদী তীরবর্তী এলাকায় দখলকৃত সকল জমি উদ্ধারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে শীঘ্রই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

আরো জানতে….

অবৈধভাবে জমি দখল করতে গ্রামবাসীর উপর আবুল খায়ের গ্রুপের হামলা, আহত ৪০(ভিডিও সহ)

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back to top button
Close
Close